:ঘরে বাইরে-বিমলার আত্মকথা/Bimala’s Story

ঘরে বাইরে
বিমলার আত্মকথা
মা গো, আজ মনে পড়ছে তোমার সেই সিঁথের সিঁদুর, চওড়া সেই লাল-পেড়ে শাড়ি, সেই তোমার দুটি চোখ— শান্ত, স্নিগ্ধ, গভীর। সে যে দেখেছি আমার চিত্তাকাশে ভোরবেলাকার অরুণরাগরেখার মতো। আমার জীবনের দিন যে সেই সোনার পাথেয় নিয়ে যাত্রা করে বেরিয়েছিল। তার পরে? পথে কালো মেঘ কি ডাকাতের মতো ছুটে এল? সেই আমার আলোর সম্বল কি এক কণাও রাখল না? কিন্তু জীবনের ব্রাহ্মমুহূর্তে সেই-যে উষাসতীর দান, দুর্যোগে সে ঢাকা পড়ে, তবু সে কি নষ্ট হবার?
Dear Mother,  today I remember the vermilion in the parting of your hair, the wide red bordered sari, your eyes – calm, comforting, thoughtful.I have seen  it like a mark of sunlight on the horizons of my mind,  early in the morning. The days of my life had set out on their journey with that golden treasure as a guarantee . What after that? Did the dark clouds rush in like marauders? Do I have any of that golden treasure in store? The boon given by the early morning goddess in the dawn of life, even if  it was obscured by storms, is it gone forever?

আমাদের দেশে তাকেই বলে সুন্দর যার বর্ণ গৌর। কিন্তু যে আকাশ আলো দেয় সে যে নীল। আমার মায়ের বর্ণ ছিল শামলা, তাঁর দীপ্তি ছিল পুণ্যের। তাঁর রূপ রূপের গর্বকে লজ্জা দিত।

আমি মায়ের মতো দেখতে এই কথা সকলে বলে। তা নিয়ে ছেলেবেলায় একদিন আয়নার উপর রাগ করেছি। মনে হত আমার সর্বাঙ্গে এ যেন একটা অন্যায়— আমার গায়ের রঙ, এ যেন আমার আসল রঙ নয়, এ যেন আর-কারো জিনিস, একেবারে আগাগোড়া ভুল।

সুন্দরী তো নই, কিন্তু মায়ের মতো যেন সতীর যশ পাই দেবতার কাছে একমনে এই বর চাইতুম। বিবাহের সম্বন্ধ হবার সময় আমার শ্বশুরবাড়ি থেকে দৈবজ্ঞ এসে আমার হাত দেখে বলেছিল, এ মেয়েটি সুলক্ষণা সতীলক্ষ্মী হবে। মেয়েরা সবাই বললে, তা হবেই তো, বিমলা যে ওর মায়ের মতো দেখতে।

In our country, fair skin is considered to be beautiful. But the sky that provides us with light is dark blue. My mother was dark skinned but she had an inner glow of virtue. Her beauty would put to shame any pride in beauty.

Everyone says I look like my mother. When I was a child, I got angry with the mirror over this one day, I used to feel that my body had been wronged – the colour of my skin, this was not mine, it was as if it belonged to someone else, it was completely wrong for me.

I know I am not beautiful, but I prayed that I would be famous for being as a good wife as my mother. When my marriage was being arranged, an astrologer came from my in-laws’ house, looked at my palms and said, “this girl has the auspicious marks of good fortune, she will be as faithful as Lakshmi.” All  the women said, “Of course, that is because she looks like her mother”

রাজার ঘরে আমার বিয়ে হল। তাঁদের কোন্‌ কালের বাদশাহের আমলের সম্মান। ছেলেবেলায় রূপকথার রাজপুত্রের কথা শুনেছি, তখন থেকে মনে একটা ছবি আঁকা ছিল। রাজার ঘরের ছেলে, দেহখানি যেন চামেলি ফুলের পাপড়ি দিয়ে গড়া, যুগযুগান্তর যে-সব কুমারী শিবপূজা করে এসেছে তাদেরই একাগ্র মনের কামনা দিয়ে সেই মুখ যেন তিলে তিলে তৈরি। সে কী চোখ, কী নাক! তরুণ গোঁফের রেখা ভ্রমরের দুটি ডানার মতো, যেমন কালো, তেমনি কোমল।

স্বামীকে দেখলুম, তার সঙ্গে ঠিক মেলে না। এমন-কি, তাঁর রঙ দেখলুম আমারই মতো। নিজের রূপের অভাব নিয়ে মনে যে সংকোচ ছিল সেটা কিছু ঘুচল বটে, কিন্তু সেই সঙ্গে একটা দীর্ঘনিশ্বাসও পড়ল। নিজের জন্যে লজ্জায় না হয় মরেই যেতুম, তবু মনে মনে যে রাজপুত্রটি ছিল তাকে একবার চোখে চোখে দেখতে পেলুম না কেন?

I was married to a family bearing the title of Raja. Some Muslim emperor had granted them the honour in the past. I had heard of fairy tale princes as a child, there  was a picture in my mind. The prince would have a body made of flower  petals. His face would have been made from the most fervent prayers of the maidens who have worshipped Shiva through the ages. His young mustache would have been like the wings of a bumble bee, black and soft.

কিন্তু রূপ যখন চোখের পাহারা এড়িয়ে লুকিয়ে অন্তরে দেখা দেয় সেই বুঝি ভালো। তখন সে যে ভক্তির অমরাবতীতে এসে দাঁড়ায়, সেখানে তাকে কোনো সাজ করে আসতে হয় না। ভক্তির আপন সৌন্দর্যে সমস্তই কেমন সুন্দর হয়ে ওঠে সে আমি ছেলেবেলায় দেখেছি। মা যখন বাবার জন্যে বিশেষ করে ফলের খোসা ছাড়িয়ে সাদা পাথরের রেকাবিতে জলখাবার গুছিয়ে দিতেন, বাবার জন্যে পানগুলি বিশেষ করে কেওড়া-জলের-ছিটে-দেওয়া কাপড়ের টুকরোয় আলাদা জড়িয়ে রাখতেন, তিনি খেতে বসলে তালপাতার পাখা নিয়ে আস্তে আস্তে মাছি তাড়িয়ে দিতেন, তাঁর সেই লক্ষ্মীর হাতের আদর, তাঁর হৃদয়ের সেই সুধারসের ধারা কোন্‌ অপরূপ রূপের সমুদ্রে গিয়ে ঝাঁপ দিয়ে পড়ত সে যে আমার সেই ছেলেবেলাতেও মনের মধ্যে বুঝতুম।

But beauty is best when it touches the mind without needing to be recognised by the eyes. That way, when it arrives in the citadel of adoration, it needs no ornament. Adoration itself  renders everything beautiful. When my mother peeled fruit and placed the pieces on a white stone plate for my father’s breakfast, when she covered his paan in a damp handkerchief specially soaked in the essence of screwpine flowers, when she fanned him slowly during mealtimes to keep the flies at bay, the very hand of Lakshmi was  at work, the kindness of her heart was part of the vast ocean of  beauty that surrounded us – this was clear to me even as a child

সেই ভক্তির সুরটি কি আমার মনের মধ্যে ছিল না? ছিল। তর্ক না, ভালোমন্দের তত্ত্বনির্ণয় না, সে কেবলমাত্র একটি সুর! সমস্ত জীবনকে যদি জীবনবিধাতার মন্দির প্রাঙ্গণে একটি স্তবগান করে বাজিয়ে যাবার কোনো সার্থকতা থাকে, তবে সেই প্রভাতের সুরটি আপনার কাজ আরম্ভ করেছিল।

মনে আছে, ভোরের বেলায় উঠে অতি সাবধানে যখন স্বামীর পায়ের ধুলো নিতুম তখন মনে হত আমার সিঁথের সিঁদুরটি যেন শুকতারার মতো জ্বলে উঠল। একদিন তিনি হঠাৎ জেগে হেসে উঠে বললেন, ও কি বিমল, করছ কী!

Was there no trace  of that adoration in my heart? There was. There was no argument, no attempt to decide whether it was good or  bad, it was just a trace. If there is any glory in offering our lives as a prayer in the temple of fate, then surely, that adoration had started forming in my heart.

I remember, when I used to touch my husband’s feet very carefully to show him respect early in the mornings, I felt as though the vermilion mark in my hair parting was shining like a star. One day, he woke up suddenly and laughed, saying, “What is this Bimal, what are you doing?”

Follow the links to watch the much loved film by Satyajit Ray

http://www.youtube.com/watch?v=QZEqaUypt6Y&feature=related

One thought on “:ঘরে বাইরে-বিমলার আত্মকথা/Bimala’s Story

  1. A few of my friends are translating from Bangla at present. I am so grateful because I can’t understand the original. Your translations are delicate and careful, taking the reader on a gentle, natural flow. Thank you!

Comments are closed.