গান্ধারীর আবেদন/Gandharir Abedon/Gandhari’s Supplication

দুর্যোধনঃ

শুন নিবেদন
পিতৃদেব — এতকাল তব সিংহাসন
আমার নিন্দুকদল নিত্য ছিল ঘিরে ,
কণ্টকতরুর মতো নিষ্ঠুর প্রাচীরে
তোমার আমার মধ্যে রচি ব্যবধান —
শুনায়েছে পাণ্ডবের নিত্যগুণগান ,
আমাদের নিত্য নিন্দা — এইমতে , পিতঃ ,
পিতৃস্নেহ হতে মোরা চিরনির্বাসিত ।
এইমতে , পিতঃ , মোরা শিশুকাল হতে
হীনবল — উৎসমুখে পিতৃস্নেহস্রোতে
পাষাণের বাধা পড়ি মোরা পরিক্ষীণ
শীর্ণ নদ , নষ্টপ্রাণ , গতিশক্তিহীন ,
পদে পদে প্রতিহত ; পাণ্ডবেরা স্ফীত ,
অখণ্ড , অবাধগতি । অদ্য হতে পিতঃ ,
যদি সে নিন্দুকদলে নাহি কর দূর
সিংহাসনপার্শ্ব হতে , সঞ্জয় বিদুর
ভীষ্মপিতামহে , যদি তারা বিজ্ঞবেশে
হিতকথা ধর্মকথা সাধু-উপদেশে
নিন্দায় ধিক্কারে তর্কে নিমেষে নিমেষে
ছিন্ন ছিন্ন করি দেয় রাজকর্মডোর ,
ভারাক্রান্ত করি রাখে রাজদণ্ড মোর ,
পদে পদে দ্বিধা আনে রাজশক্তি-মাঝে ,
মুকুট মলিন করে অপমানে লাজে ,
তবে ক্ষমা দাও পিতৃদেব — নাহি কাজ
সিংহাসনকণ্টকশয়নে — মহারাজ ,
বিনিময় করে লই পাণ্ডবের সনে
রাজ্য দিয়ে বনবাস , যাই নির্বাসনে ।

ধৃতরাষ্ট্রঃ

হায় বৎস অভিমানী! পিতৃস্নেহ মোর
কিছু যদি হ্রাস হত শুনি সুকঠোর
সুহৃদের নিন্দাবাক্য , হইত কল্যাণ ।
অধর্মে দিয়েছি যোগ , হারায়েছি জ্ঞান ,
এত স্নেহ । করিতেছি সর্বনাশ তোর ,
এত স্নেহ । জ্বালাতেছি কালানল ঘোর
পুরাতন কুরুবংশ-মহারণ্যতলে —
তবু পুত্র , দোষ দিস স্নেহ নাই ব’লে ?
মণিলোভে কালসর্প করিলি কামনা ,
দিনু তোরে নিজহস্তে ধরি তার ফণা
অন্ধ আমি । — অন্ধ আমি অন্তরে বাহিরে
চিরদিন — তোরে লয়ে প্রলয়তিমিরে
চলিয়াছি — বন্ধুগণ হাহাকাররবে
করিছে নিষেধ , নিশাচর গৃধ্র-সবে
করিতেছে অশুভ চীৎকার , পদে পদে
সংকীর্ণ হতেছে পথ , আসন্ন বিপদে
কণ্টকিত কলেবর , তবু দৃঢ়করে
ভয়ংকর স্নেহে বক্ষে বাঁধি লয়ে তোরে
বায়ুবলে অন্ধবেগে বিনাশের গ্রাসে
ছুটিয়া চলেছি মূঢ় মত্ত অট্টহাসে
উল্কার আলোকে — শুধু তুমি আর আমি ,
আর সঙ্গী বজ্রহস্ত দীপ্ত অন্তর্যামী —
নাই সম্মুখের দৃষ্টি , নাই নিবারণ
পশ্চাতের , শুধু নিম্নে ঘোর আকর্ষণ
নিদারুণ নিপাতের । সহসা একদা
চকিতে চেতনা হবে , বিধাতার গদা
মুহূর্তে পড়িবে শিরে , আসিবে সময় —
ততক্ষণ পিতৃস্নেহে কোরো না সংশয় ,
আলিঙ্গন করো না শিথিল , ততক্ষণ
দ্রুত হস্তে লুটি লও সর্ব স্বার্থধন —
হও জয়ী , হও সুখী , হও তুমি রাজা
একেশ্বর । — ওরে , তোরা জয়বাদ্য বাজা ।
জয়ধ্বজা তোল্‌ শূন্যে । আজি জয়োৎসবে
ন্যায় ধর্ম বন্ধু ভ্রাতা কেহ নাহি রবে —
না রবে বিদুর ভীষ্ম , না রবে সঞ্জয় ,
নাহি রবে লোকনিন্দা লোকলজ্জা-ভয়
কুরুবংশরাজলক্ষ্মী নাহি রবে আর —
শুধু রবে অন্ধ পিতা , অন্ধ পুত্র তার ,
আর কালান্তক যম — শুধু পিতৃস্নেহ
আর বিধাতার শাপ , আর নহে কেহ ।

Duryodhana:

Listen to my plea
Father – for long has your throne
Been surrounded by my critics daily,
Like a wall of thorns creating
A barrier most cruel between you and me-
They have daily sung the praises of my enemy,
And our calumny – this is how
Father, we have been banished from your love forever
This is how, Father, from childhood
We have been rendered weak –the source
Of fatherly affection dammed, we became
The weaker tributary, lifeless, immobile
Prevented from achieving glory; the Pandavas growing,
Untrammeled, unrestrained. If hereafter,
Father, you do not banish the band of critics
That surrounds your throne, Sanjoy, Vidura
Grandfatherly Bhishma, if you allow
Them to continue, in the guise of wise, right advice
To daily condemn, correct and undermine
At every step the carriage of kingly duties,
And stay my scepter,
Interrupting at every chance kingly concourse,
And shame the crown,
Then forgive me father – I have no use for
This throne of thorns – Oh King,
Let me exchange my fate with the Pandavas
Give up my kingdom and go on exile instead.

Dhritarashtra:

Alas, conceited son! Were it that
My love for you had been less
As was advised most strongly by able friends
It would have been right.
I have joined the forces of evil, lost all sense
So much love! I am your ruination,
So much love! I have lit a deadly fire
That eats away at the ancient Kuru family tree
Still son, you rebuke me for not loving you enough?
You desired a deadly snake for the gem on its brow,
I caught that for you with these hands of mine
I am blind! I have been thus within and without
Forever – as we walk together into this deadly storm
Friends entreat me to stop, the unholy animals of the night
Screech their calls, at each step
The path grows ever constricted, approaching evil
Makes my skin crawl, still with unshaken hand
I gather you to my breast with terrible love
And speed blindly, into the gaping maw of disaster
Maddened by foolishness, laughing
Our path lit by the ill fated glow of comets.
Our only companion, our Fate
Thunderbolt in hand –
No foresight, no restraint behind
We are bound in a downward spin
To certain downfall. Suddenly will you
Realize, as the mighty hand of God falls
Do not doubt in your father’s love till then
Do not release this embrace chilling, till then
Steal every thing you desire
Be victorious, be at peace, be a king
Alone exalted. –hark, you all
Play the songs of Kuru victory, fly our pennants high
Today in this celebration of victory, we do not invite
Right, truth, brother, or friend, nay –
Not Vidura, not Bhishma, nor Sanjoy,
We will not hear condemnation or cries of shame from subjects
The guardian spirit of our dynasty neither –
The only two invited will be you and me,
A blind father and his son unseeing,
And Death – a father’s love
And the curse of God, no one else.

Image from: http://damecarcass.blogspot.com.au/2011/08/dice-game.html