গোরা/Gora

tag baul

Rabindranath Tagore once wrote about the Bauls of his beloved Bengal, “One day I chanced to hear a song from a beggar belonging to the Baul sect of Bengal…What struck me in this simple song was a religious expression that was neither grossly concrete, full of crude details, nor metaphysical in its rarefied transcendentalism… “

Gora is one of his novels where he has written about the Bauls, wandering mendicant singers of Bengal.

গোরা

শ্রাবণ মাসের সকালবেলায় মেঘ কাটিয়া গিয়া নির্মল রৌদ্রে কলিকাতার আকাশ ভরিয়া গিয়াছে। রাস্তায় গাড়িঘোড়ার বিরাম নাই, ফেরিওয়ালা অবিশ্রাম হাঁকিয়া চলিয়াছে, যাহারা আপিসে কালেজে আদালতে যাইবে তাহাদের জন্য বাসায় বাসায় মাছ-তরকারির চুপড়ি আসিয়াছে ও রান্নাঘরে উনান জ্বালাইবার ধোঁওয়া উঠিয়াছে— কিন্তু তবু এত বড়ো এই-যে কাজের শহর কঠিন হৃদয় কলিকাতা, ইহার শত শত রাস্তা এবং গলির ভিতরে সোনার আলোকের ধারা আজ যেন একটা অপূর্ব যৌবনের প্রবাহ বহিয়া লইয়া চলিয়াছে।

এমন দিনে বিনা-কাজের অবকাশে বিনয়ভূষণ তাহার বাসার দোতলার বারান্দায় একলা দাঁড়াইয়া রাস্তায় জনতার চলাচল দেখিতেছিল। কালেজের পড়াও অনেক দিন চুকিয়া গেছে, অথচ সংসারের মধ্যেও প্রবেশ করে নাই, বিনয়ের অবস্থাটা এইরূপ। সভাসমিতি চালানো এবং খবরের কাগজ লেখায় মন দিয়াছে— কিন্তু তাহাতে সব মনটা ভরিয়া উঠে নাই। অন্তত আজ সকালবেলায় কী করিবে তাহা ভাবিয়া না পাইয়া তাহার মনটা চঞ্চল হইয়া উঠিতেছিল। পাশের বাড়ির ছাতের উপরে গোটা-তিনেক কাক কী লইয়া ডাকাডাকি করিতেছিল এবং চড়ুই-দম্পতি তাহার বারান্দার এক কোণে বাসা-নির্মাণ-ব্যাপারে পরস্পরকে কিচিমিচি শব্দে উৎসাহ দিতেছিল— সেই-সমস্ত অব্যক্ত কাকলি বিনয়ের মনের মধ্যে একটা কোন্‌ অস্পষ্ট ভাবাবেগকে জাগাইয়া তুলিতেছিল।

আলখাল্লা-পরা একটা বাউল নিকটে দোকানের সামনে দাঁড়াইয়া গান গাহিতে লাগিল—
                                    খাঁচার ভিতর অচিন পাখি কমনে আসে যায়,
                                    ধরতে পারলে মনোবেড়ি দিতেম পাখির পায়

বিনয়ের ইচ্ছা করিতে লাগিল বাউলকে ডাকিয়া এই অচিন পাখির গানটা লিখিয়া লয়, কিন্তু ভোর-রোত্রে যেমন শীত-শীত করে অথচ গায়ের কাপড়টা টানিয়া লইতে উদ্যম থাকে না, তেমনি একটা আলস্যের ভাবে বাউলকে ডাকা হইল না, গান লেখাও হইল না, কেবল ঐ অচেনা পাখির সুরটা মনের মধ্যে গুন্‌ গুন্‌ করিতে লাগিল।

এমন সময় ঠিক তাহার বাসার সামনেই একটা ঠিকাগাড়ির উপরে একটা মস্ত জুড়িগাড়ি আসিয়া পড়িল এবং ঠিকাগাড়ির একটা চাকা ভাঙিয়া দিয়া দৃকপাত না করিয়া বেগে চলিয়া গেল। ঠিকাগাড়িটা সম্পূর্ণ উলটাইয়া না পড়িয়া এক পাশে কাত হইয়া পড়িল।

বিনয় তাড়াতাড়ি রাস্তায় বাহির হইয়া দেখিল গাড়ি হইতে একটি সতেরো-আঠারো বৎসরের মেয়ে নামিয়া পড়িয়াছে, এবং ভিতর হইতে একজন বৃদ্ধগোছের ভদ্রলোক নামিবার উপক্রম করিতেছেন।

বিনয় তাঁহাকে ধরাধরি করিয়া নামাইয়া দিল, এবং তাঁহার মুখ বিবর্ণ হইয়া গেছে দেখিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “আপনার লাগে নি তো?”

তিনি “না, কিছু হয় নি” বলিয়া হাসিবার চেষ্টা করিলেন, সে হাসি তখনই মিলাইয়া গেল এবং তিনি মূর্ছিত হইয়া পড়িবার উপক্রম করিলেন। বিনয় তাঁহাকে ধরিয়া ফেলিল ও উৎকণ্ঠিত মেয়েটিকে কহিল, “এই সামনেই আমার বাড়ি; ভিতরে চলুন।”

বৃদ্ধকে বিছানায় শোওয়ানো হইলে মেয়েটি চারি দিকে তাকাইয়া দেখিল ঘরের কোণে একটি জলের কুঁজা আছে। তখনই সেই কুঁজার জল গেলাসে করিয়া লইয়া বৃদ্ধের মুখে ছিটা দিয়া বাতাস করিতে লাগিল এবং বিনয়কে কহিল, “একজন ডাক্তার ডাকলে হয় না?”

বাড়ির কাছেই ডাক্তার ছিল। বিনয় তাঁহাকে ডাকিয়া আনিতে বেহারা পাঠাইয়া দিল।

ঘরের এক পাশে টেবিলের উপরে একটা আয়না, তেলের শিশি ও চুল আঁচড়াইবার সরঞ্জাম ছিল। বিনয় সেই মেয়েটির পিছনে দাঁড়াইয়া সেই আয়নার দিকে একদৃষ্টে চাহিয়া স্তব্ধ হইয়া রহিল।

বিনয় ছেলেবেলা হইতেই কলিকাতার বাসায় থাকিয়া পড়াশুনা করিয়াছে। সংসারের সঙ্গে তাহার যাহা-কিছু পরিচয় সে-সমস্তই বইয়ের ভিতর দিয়া। নিঃসম্পর্কীয়া ভদ্রস্ত্রীলোকের সঙ্গে তাহার কোনোদিন কোনো পরিচয় হয় নাই।

আয়নার দিকে চাহিয়া দেখিল, যে মুখের ছায়া পড়িয়াছে সে কী সুন্দর মুখ! মুখের প্রত্যেক রেখা আলাদা করিয়া দেখিবার মতো তাহার চোখের অভিজ্ঞতা ছিল না। কেবল সেই উদ্‌‍বিগ্ন স্নেহে আনত তরুণ মুখের কোমলতামণ্ডিত উজ্জ্বলতা বিনয়ের চোখে সৃষ্টির সদ্যঃপ্রকাশিত একটি নূতন বিস্ময়ের মতো ঠেকিল।

একটু পরে বৃদ্ধ অল্পে অল্পে চক্ষু মেলিয়া “মা” বলিয়া দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিলেন। মেয়েটি তখন দুই চক্ষু ছল্ছল্ করিয়া বৃদ্ধের মুখের কাছে মুখ নিচু করিয়া আর্দ্রস্বরে জিজ্ঞাসা করিল, “বাবা, তোমার কোথায় লেগেছে?”

“এ আমি কোথায় এসেছি” বলিয়া বৃদ্ধ উঠিয়া বসিবার উপক্রম করিতেই বিনয় সম্মুখে আসিয়া কহিল, “উঠবেন না— একটু বিশ্রাম করুন, ডাক্তার আসছে।”

তখন তাঁহার সব কথা মনে পড়িল ও তিনি কহিলেন, “মাথার এইখানটায় একটু বেদনা বোধ হচ্ছে, কিন্তু গুরুতর কিছুই নয়।”

সেই মুহূর্তেই ডাক্তার জুতা মচ্‌ মচ্‌ করিতে করিতে আসিয়া উপস্থিত হইলেন; তিনিও বলিলেন, “বিশেষ কিছুই নয়।” একটু গরম দুধ দিয়া অল্প ব্রাণ্ডি খাইবার ব্যবস্থা করিয়া ডাক্তার চলিয়া যাইতেই বৃদ্ধ অত্যন্ত সংকুচিত ও ব্যস্ত হইয়া উঠিলেন। তাঁহার মেয়ে তাঁহার মনের ভাব বুঝিয়া কহিল, “বাবা, ব্যস্ত হচ্ছ কেন? ডাক্তারের ভিজিট ও ওষুধের দাম বাড়ি থেকে পাঠিয়ে দেব।”

বলিয়া সে বিনয়ের মুখের দিকে চাহিল।

সে কী আশ্চর্য চক্ষু! সে চক্ষু বড়ো কি ছোটো, কালো কি কটা সে তর্ক মনেই আসে না— প্রথম নজরেই মনে হয়, এই দৃষ্টির একটা অসন্দিগ্ধ প্রভাব আছে। তাহাতে সংকোচ নাই, দ্বিধা নাই, তাহা একটা স্থির শক্তিতে পূর্ণ।

বিনয় বলিতে চেষ্টা করিল, “ভিজিট অতি সামান্য, সেজন্যে— সে আপনারা— সে আমি—”

মেয়েটি তাহার মুখের দিকে চাহিয়া থাকাতে কথাটা ঠিকমত শেষ করিতেই পারিল না। কিন্তু ভিজিটের টাকাটা যে তাহাকে লইতেই হইবে সে সম্বন্ধে কোনো সংশয় রহিল না।

বৃদ্ধ কহিলেন, “দেখুন, আমার জন্যে ব্রাণ্ডির দরকার নেই—”

কন্যা তাঁহাকে বাধা দিয়া কহিল, “কেন বাবা, ডাক্তারবাবু যে বলে গেলেন।”

বৃদ্ধ কহিলেন, “ডাক্তাররা অমন বলে থাকে, ওটা ওদের একটা কুসংস্কার। আমার যেটুকু দুর্বলতা আছে একটু গরম দুধ খেলেই যাবে।”

দুধ খাইয়া বল পাইলে বৃদ্ধ বিনয়কে কহিলেন, “এবারে আমরা যাই। আপনাকে বড়ো কষ্ট দিলুম।”

মেয়েটি বিনয়ের মুখের দিকে চাহিয়া কহিল, “একটা গাড়ি—”

বৃদ্ধ সংকুচিত হইয়া কহিলেন, “আবার কেন ওঁকে ব্যস্ত করা? আমাদের বাসা তো কাছেই, এটুকু হেঁটেই যাব।”

মেয়েটি বলিল, “না বাবা, সে হতে পারে না।”

বৃদ্ধ ইহার উপর কোনো কথা কহিলেন না এবং বিনয় নিজে গিয়া গাড়ি ডাকিয়া আনিল। গাড়িতে উঠিবার পূর্বে বৃদ্ধ তাহাকে জিজ্ঞাসা করিলেন, “আপনার নামটি কী?”

বিনয়। আমার নাম বিনয়ভূষণ চট্টোপাধ্যায়।

বৃদ্ধ কহিলেন, “আমার নাম পরেশচন্দ্র ভট্টাচার্য। নিকটেই ৭৮ নম্বর বাড়িতে থাকি। কখনো অবকাশমত যদি আমাদের ওখানে যান তো বড়ো খুশি হব।”

মেয়েটি বিনয়ের মুখের দিকে দুই চোখ তুলিয়া নীরবে এই অনুরোধের সমর্থন করিল। বিনয় তখনই সেই গাড়িতে উঠিয়া তাঁহাদের বাড়িতে যাইতে প্রস্তুত ছিল, কিন্তু সেটা ঠিক শিষ্টাচার হইবে কি না ভাবিয়া না পাইয়া দাঁড়াইয়া রহিল। গাড়ি ছাড়িবার সময় মেয়েটি বিনয়কে ছোটো একটি নমস্কার করিল। এই নমস্কারের জন্য বিনয় একেবারেই প্রস্তুত ছিল না, এইজন্য হতবুদ্ধি হইয়া সে প্রতিনমস্কার করিতে পারিল না। এইটুকু ত্রুটি লইয়া বাড়িতে ফিরিয়া সে নিজেকে বার বার ধিক্কার দিতে লাগিল। ইঁহাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হইতে বিদায় হওয়া পর্যন্ত বিনয় নিজের আচরণ সমস্তটা আলোচনা করিয়া দেখিল; মনে হইল, আগাগোড়া তাহার সমস্ত ব্যবহারেই অসভ্যতা প্রকাশ পাইয়াছে। কোন্‌ কোন্‌ সময়ে কী করা উচিত ছিল, কী বলা উচিত ছিল, তাহা লইয়া মনে মনে কেবলই বৃথা আন্দোলন করিতে লাগিল। ঘরে ফিরিয়া আসিয়া দেখিল, যে রুমাল দিয়া মেয়েটি তাহার বাপের মুখ মুছাইয়া দিয়াছিল সেই রুমালটি বিছানার উপর পড়িয়া আছে— সেটা তাড়াতাড়ি তুলিয়া লইল। তাহার মনের মধ্যে বাউলের সুরে ঐ গানটা বাজিতে লাগিল—
                                    খাঁচার ভিতর অচিন পাখি কমনে আসে যায়।

GORA

The clouds had parted on that Shravan morning to allow spotless sunshine to fill the Kolkata skies. Vehicles came and went continually along the road, vendors hawked their wares ceaselessly, baskets filled with fish and vegetables had already arrived at houses where people were preparing to leave for work and school and smoke rose from the hearths – and yet even in this vast busy city of Kolkata with its heart of stone, that stream of golden light seemed to carry a delightful sense of vitality through its hundreds of avenues and streets.

On this day Binoybhushan stood on his first floor verandah watching the movement of people on the street as he had not much else to do. He had finished his college studies but had not entered the domestic cycle yet. He was concentrating on running committees and writing for the papers, but this did not quite satisfy him. His mind was quite anxious about his indecision regarding what he would do that morning. The cawing of a couple of crows on the roof terrace next door and the chirping of a pair  of sparrows as they encouraged each other in building a nest in the corner of the verandah where he stood – these unspoken entreaties were stirring a vague emotion within Binoy’s heart.

A baul wearing long robes stood in front of a nearby shop and sang –

‘How does the nameless bird come and go from the cage,

If I could catch it I would bind it with the fetters of my heart’

Binoy felt like asking the baul to come so that he could write the song down, but a kind of languor prevented him from doing so, the same feeling that makes one feel cold at dawn but  prevents us from pulling the covers up; the song remained unwritten and the tune of the nameless bird kept humming in his mind.

Just at this moment a large carriage came and collided with a hackney coach in front of his house. One of the wheels of the hackney coach broke off but the carriage sped off without stopping while the hackney tilted on its side without toppling over completely.

Binoy quickly went outside and saw that a girl of seventeen or eighteen years had alighted from the coach and was attempting to help out an elderly gentleman.

Binoy helped him out and noticing his face had grown pale asked, ‘you are not hurt I hope?’

He tried to smile saying, ‘no, not at all,’ but his smile faded and he seemed about to collapse in a faint. Binoy caught him and said to the anxious girl, ‘my house is just over there, come with me.’

When the old man had been laid on the bed the girl looked around the room and saw a water jar. She poured herself a glass and sprinkled a few drops on the man’s face as she said to Binoy, ‘should we not call a doctor?’

There was a doctor who lived close by. Binoy sent his man servant to fetch him.

There was a mirror, some hair oil and a couple of brushes on a table at one side of the room. Binoy stood behind the girl and stared at the mirror in silence.

He had studied in Kolkata while living in rented accommodation from when he was a child. Whatever he knew of society was through books. He had never known a woman who was not part of his family.

He looked at the mirror and thought, how beautiful that face seen in the reflection! His eyes lacked the experience needed to be able to look at each line of that face individually. Even so, to him that anxious, loving young face with its soft luminousness appeared like a newly unveiled wonder of creation.

After a short while the old man slowly opened his eyes and said with a sigh, ‘Ma!’ The girl’s eyes brimmed with tears as she lowered her face to his and asked gently, ‘Father, where does it hurt?’

Saying, ‘where have I come?’, the gentleman attempted to sit up; Binoy quickly moved to his side and said, ‘Do not get up – please rest a little, the doctor is coming.’

He seemed to remember what had happened and said, ‘my head hurts a little, just here, but it is nothing serious.’

The doctor arrived with much squeaking of shoes and also agreed that it was not anything major. As soon as he had left after prescribing some hot milk with a little brandy, the old man became very apologetic and restive. His daughter understood what he was thinking and said, ‘why are you so anxious Father? We will send the money for the doctor’s fee and the medicines once we go home.’

She then looked at Binoy.

How wondrous those eyes! One cannot think of whether they are large or small, dark or amber – the first thought that comes to mind is that these eyes have a trusting look. There is no hesitation, nor doubt; they are filled with a constant strength.

Binoy tried to say, ‘that is a very small sum, why….you need not…. I will….’

He could not finish what he had started to say as the girl was looking at him. But no doubt remained about the fact that he would have to take the doctor’s fee.

The elderly gentleman said, ‘Look, there is no need to get any brandy for me…’

His daughter interrupted him and said, ‘Why not Father? The doctor prescribed it.’

Her father said, ‘doctors say things like that all the time; it is a habit with them. The little weakness I have will go away once I have a little warm milk.’

After drinking the milk he felt a little stronger and said to Binoy, ‘now we will go. We have troubled you for long enough.’

The girl looked at Binoy and said, ‘a car….’

The gentleman reluctantly said, ‘why bother him again? We live so close by, let us walk….’

His daughter said, ‘no Father! That cannot be.’

Binoy went and arranged for a car when the gentleman said nothing in reply to her. Before getting in, the old man asked him, ‘what is your name?’

Binoy: ‘My name is Binoybhushan Chattopadhyay.’

The elderly gentleman said, ‘my name is Pareshchandra Bhattacharya. I live nearby at number seventy eight. If you can visit us when you have the time I will be very happy indeed.’

The girl lifted her eyes and looked at Binoy in silent agreement with her father’s request. Binoy was prepared to board their car immediately but unsure that it would be the right thing to do, he waited. When the car started, the girl gave a little nod to Binoy. He was not prepared for this at all and could not do anything to reciprocate. He returned to his house and rebuked himself repeatedly over this omission. He went over his own behaviour during the whole period he was with them from start to finish, it seemed most boorish. He kept worrying about what he should have done and said at different times. When he got home, he found the handkerchief with which the girl had wiped her father’s face lying on the bed – and picked it up quickly. The baul’s song kept playing in his mind –

Within the cage, the unknown bird comes and goes.

Follow this link to read about Rabindranath Tagore and the Baul influence in his work:

http://www.museindia.com/focuscontent.asp?issid=38&id=2724