Chokher Bali 5/চোখের বালি ৫

কিছুকাল অনাবৃষ্টিতে যে শস্যদল শুষ্ক পীতবর্ণ হইয়া আসে, বৃষ্টি পাইবামাত্র সে আর বিলম্ব করে না; হঠাৎ বাড়িয়া উঠিয়া দীর্ঘকালের উপবাসদৈন্য দূর করিয়া দেয়, দুর্বল নত ভাব ত্যাগ করিয়া শস্যক্ষেত্রের মধ্যে অসংকোচে অসংশয়ে আপনার অধিকার উন্নত ও উজ্জ্বল করিয়া তোলে, আশার সেইরূপ হইল। যেখানে তাহার রক্তের সম্বন্ধ ছিল, সেখানে সে কখনো আত্মীয়তার দাবি করিতে পায় নাই; আজ পরের ঘরে আসিয়া সে যখন বিনা প্রার্থনায় এক নিকটতম সম্বন্ধ এবং নিঃসন্দিগ্ধ অধিকার প্রাপ্ত হইল, যখন সেই অযত্নলালিতা অনাথার মস্তকে স্বামী স্বহস্তে লক্ষ্মীর মুকুট পরাইয়া দিলেন, তখন সে আপন গৌরবপদ গ্রহণ করিতে লেশমাত্র বিলম্ব করিল না, নববধূযোগ্য লজ্জাভয় দূর করিয়া দিয়া সৌভাগ্যবতী স্ত্রীর মহিমায় মুহূর্তের মধ্যেই স্বামীর পদপ্রান্তে অসংকোচে আপন সিংহাসন অধিকার করিল।

রাজলক্ষ্মী সেদিন মধ্যাহ্নে সেই সিংহাসনে এই নূতন-আগত পরের মেয়েকে এমন চিরাভ্যস্তবৎ স্পর্ধার সহিত বসিয়া থাকিতে দেখিয়া দুঃসহ বিস্ময়ে নীচে নামিয়া আসিলেন। নিজের চিত্তদাহে অন্নপূর্ণাকে দগ্ধ করিতে গেলেন। কহিলেন, “ওগো, দেখো গে, তোমার নবাবের পুত্রী নবাবের ঘর হইতে কী শিক্ষা লইয়া আসিয়াছেন। কর্তারা থাকিলে আজ–”

অন্নপূর্ণা কাতর হইয়া কহিলেন, “দিদি, তোমার বউকে তুমি শিক্ষা দিবে, শাসন করিবে, আমাকে কেন বলিতেছ।”

রাজলক্ষ্মী ধনুষ্টংকারের মতো বাজিয়া উঠিলেন, “আমার বউ? তুমি মন্ত্রী থাকিতে সে আমাকে গ্রাহ্য করিবে!”

তখন অন্নপূর্ণা সশব্দপদক্ষেপে দম্পতিকে সচকিত সচেতন করিয়া মহেন্দ্রের শয়নগৃহে উপস্থিত হইলেন। আশাকে কহিলেন, “তুই এমনি করিয়া আমার মাথা হেঁট করিবি পোড়ারমুখী? লজ্জা নাই, শরম নাই, সময় নাই, অসময় নাই, বৃদ্ধা শাশুড়ির উপর সমস্ত ঘরকন্না চাপাইয়া তুমি এখানে আরাম করিতেছ? আমার পোড়াকপাল, আমি তোমাকে এই ঘরে আনিয়াছিলাম!”

বলিতে বলিতে তাঁহার চোখ দিয়া জল ঝরিয়া পড়িল, আশাও নতমুখে বস্ত্রাঞ্চল খুঁটিতে খুঁটিতে নিঃশব্দে দাঁড়াইয়া কাঁদিতে লাগিল।

মহেন্দ্র কহিল, “কাকী, তুমি বউকে কেন অন্যায় ভর্ৎসনা করিতেছ। আমিই তো উহাকে ধরিয়া রাখিয়াছি।”

অন্নপূর্ণা কহিলেন, “সে কি ভালো কাজ করিয়াছ? ও বালিকা, অনাথা, মার কাছ হইতে কোনোদিন কোনো শিক্ষা পায় নাই, ও ভালোমন্দর কী জানে। তুমি উহাকে কী শিক্ষা দিতেছ?”

মহেন্দ্র কহিল, “এই দেখো, উহার জন্যে স্লেট খাতা বই কিনিয়া আনিয়াছি। আমি বউকে লেখাপড়া শিখাইব, তা লোকে নিন্দাই করুক আর তোমরা রাগই কর।”

অন্নপূর্ণা কহিলেন, “তাই কি সমস্ত দিনই শিখাইতে হইবে। সন্ধ্যার পর এক-আধ ঘণ্টা পড়ালেই তো ঢের হয়।”

মহেন্দ্র। অত সহজ নয় কাকী, পড়াশুনায় একটু সময়ের দরকার হয়।

অন্নপূর্ণা বিরক্ত হইয়া ঘর হইতে বাহির হইয়া গেলেন। আশাও ধীরে ধীরে তাঁহার অনুসরণের উপক্রম করিল– মহেন্দ্র দ্বার রোধ করিয়া দাঁড়াইল, আশার করুণ সজল নেত্রের কাতর অনুনয় মানিল না। কহিল, “রোসো, ঘুমাইয়া সময় নষ্ট করিয়াছি, সেটা পোষাইয়া লইতে হইবে।”

এমন গম্ভীরপ্রকৃতির শ্রদ্ধেয় মূঢ় থাকিতেও পারেন যিনি মনে করিবেন, মহেন্দ্র নিদ্রাবেশে পড়াইবার সময় নষ্ট করিয়াছে; বিশেষরূপে তাঁহাদের অবগতির জন্য বলা আবশ্যক যে, মহেন্দ্রের তত্ত্বাবধানে অধ্যাপনকার্য যেরূপে নির্বাহ হয়, কোনো স্কুলের ইন্‌সপেকটর তাহার অনুমোদন করিবেন না।

আশা তাহার স্বামীকে বিশ্বাস করিয়াছিল; সে বস্তুতই মনে করিয়াছিল লেখাপড়া শেখা তাহার পক্ষে নানা কারণে সহজ নহে বটে, কিন্তু স্বামীর আদেশবশত নিতান্তই কর্তব্য। এইজন্য সে প্রাণপণে অশান্ত বিক্ষিপ্ত মনকে সংযত করিয়া আনিত, শয়নগৃহের মেঝের উপর ঢালা বিছানার এক পার্শ্বে অত্যন্ত গম্ভীর হইয়া বসিত এবং পুঁথিপত্রের দিকে একেবারে ঝুঁকিয়া পড়িয়া মাথা দুলাইয়া মুখস্থ করিতে আরম্ভ করিত। শয়নগৃহের অপর প্রান্তে ছোটো টেবিলের উপর ডাক্তারি বই খুলিয়া মাস্টারমশায় চৌকিতে বসিয়া আছেন, মাঝে মাঝে কটাক্ষপাতে ছাত্রীর মনোযোগ লক্ষ্য করিয়া দেখিতেছেন। দেখিতে দেখিতে হঠাৎ ডাক্তারি বই বন্ধ করিয়া মহেন্দ্র আশার ডাক-নাম ধরিয়া ডাকিল, “চুনি।” চকিত আশা মুখ তুলিয় চাহিল। মহেন্দ্র কহিল, “বইটা আনো দেখি, দেখি কোন্‌খানটা পড়িতেছ।”

আশার ভয় উপস্থিত হইল, পাছে মহেন্দ্র পরীক্ষা করে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হইবার আশা অল্পই ছিল। কারণ, চারুপাঠের চারুত্ব-প্রলোভনে তাহার অবাধ্য মন কিছুতেই বশ মানে না; বল্মীক সম্বন্ধে সে যতই জ্ঞানলাভের চেষ্টা করে, অক্ষরগুলো ততই তাহার দৃষ্টিপথের উপর দিয়া কালো পিপীলিকার মতো সার বাঁধিয়া চলিয়া যায়।

পরীক্ষকের ডাক শুনিয়া অপরাধীর মতো আশা ভয়ে ভয়ে বইখানি লইয়া মহেন্দ্রের চৌকির পাশে আসিয়া উপস্থিত হয়। মহেন্দ্র এক হাতে কটিদেশ বেষ্টনপূর্বক তাহাকে দৃঢ়রূপে বন্দী করিয়া অপর হাতে বই ধরিয়া কহে, “আজ কতটা পড়িলে দেখি।” আশা যতগুলা লাইনে চোখ বুলাইয়াছিল, দেখাইয়া দেয়। মহেন্দ্র ক্ষুণ্নস্বরে বলে, “উঃ! এতটা পড়িতে পারিয়াছ? আমি কতটা পড়িয়াছি দেখিবে?” বলিয়া তাহার ডাক্তারি বইয়ের কোনো-একটা অধ্যায়ের শিরোনামটুকু মাত্র দেখাইয়া দেয়। আশা বিস্ময়ে চোখদুটা ডাগর করিয়া বলে, “তবে এতক্ষণ কী করিতেছিলে।” মহেন্দ্র তাহার চিবুক ধরিয়া বলে, আমি একজনের কথা ভাবিতেছিলাম, কিন্তু যাহার কথা ভাবিতেছিলাম সেই নিষ্ঠুর তখন চারুপাঠে উইপোকার অত্যন্ত মনোহর বিবরণ লইয়া ভুলিয়া ছিল।” আশা এই অমূলক অভিযোগের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দিতে পারিত– কিন্তু হায়, কেবলমাত্র লজ্জার খাতিরে প্রেমের প্রতিযোগিতায় অন্যায় পরাভব নীরবে মানিয়া লইতে হয়।

ইহা হইতে স্পষ্ট প্রমাণ হইবে, মহেন্দ্রের এই পাঠশালাটি সরকারি বা বেসরকারি কোনো বিদ্যালয়ের কোনো নিয়ম মানিয়া চলে না।

হয়তো একদিন মহেন্দ্র উপস্থিত নাই– সেই সুযোগে আশা পাঠে মন দিবার চেষ্টা করিতেছে, এমন সময় কোথা হইতে মহেন্দ্র আসিয়া তাহার চোখ টিপিয়া ধরিল, পরে তাহার বই কাড়িয়া লইল, কহিল, “নিষ্ঠুর, আমি না থাকিলে তুমি আমার কথা ভাব না, পড়া লইয়া থাক?”

আশা কহিল, “তুমি আমাকে মূর্খ করিয়া রাখিবে?”

মহেন্দ্র কহিল, “তোমার কল্যাণে আমারই বা বিদ্যা এমনই কী অগ্রসর হইতেছে।”

কথাটা আশাকে হঠাৎ বাজিল; তৎক্ষণাৎ চলিয়া যাইবার উপক্রম করিয়া কহিল, “আমি তোমার পড়ায় কী বাধা দিয়াছি।”

মহেন্দ্র তাহার হাত ধরিয়া কহিল, “তুমি তাহার কী বুঝিবে। আমাকে ছাড়িয়া তুমি যত সহজে পড়া করিতে পার, তোমাকে ছাড়িয়া তত সহজে আমি আমার পড়া করিতে পারি না।”

গুরুতর দোষারোপ। ইহার পরে স্বভাবতই শরতের এক পসলার মতো এক দফা কান্নার সৃষ্টি হয় এবং অনতিকালমধ্যেই কেবল একটি সজল উজ্জ্বলতা রাখিয়া সোহাগের সূর্যালোকে তাহা বিলীন হইয়া যায়।

শিক্ষক যদি শিক্ষার সর্বপ্রধান অন্তরায় হন, তবে অবলা ছাত্রীর সাধ্য কী বিদ্যারণ্যের মধ্যে পথ করিয়া চলে। মাঝে মাঝে মাসিমার তীব্র ভর্ৎসনা মনে পড়িয়া চিত্ত বিচলিত হয়– বুঝিতে পারে, লেখাপড়া একটা ছুতা মাত্র; শাশুড়িকে দেখিলে লজ্জায় মরিয়া যায়। কিন্তু শাশুড়ি তাহাকে কোনো কাজ করিতে বলেন না, কোনো উপদেশ দেন না; অনাদিষ্ট হইয়া আশা শাশুড়ির গৃহকার্যে সাহায্য করিতে গেলে তিনি ব্যস্তসমস্ত হইয়া বলেন, “কর কী, কর কী, শোবার ঘরে যাও, তোমার পড়া কামাই যাইতেছে।”

অবশেষে অন্নপূর্ণা আশাকে কহিলেন, “তোর যা শিক্ষা হইতেছে সে তো দেখিতেছি, এখন মহিনকেও কি ডাক্তারি দিতে দিবি না।”

শুনিয়া আশা মনকে খুব শক্ত করিল, মহেন্দ্রকে বলিল, “তোমার এক্‌জামিনের পড়া হইতেছে না, আজ হইতে আমি নীচে মাসিমার ঘরে গিয়া থাকিব।”

এ বয়সে এতবড়ো কঠিন সন্ন্যাসব্রত! শয়নালয় হইতে একেবারে মাসিমার ঘরে আত্মনির্বাসন! এই কঠোর প্রতিজ্ঞা উচ্চারণ করিতে তাহার চোখের প্রান্তে জল আসিয়া পড়িল, তাহার অবাধ্য ক্ষুদ্র অধর কাঁপিয়া উঠিল এবং কণ্ঠস্বর রুদ্ধপ্রায় হইয়া আসিল।

মহেন্দ্র কহিল, “তবে তাই চলো, কাকীর ঘরেই যাওয়া যাক– কিন্তু তাহা হইলে তাঁহাকে উপরে আমাদের ঘরে আসিতে হইবে।”

আশা একবড়ো উদার গম্ভীর প্রস্তাবে পরিহাস প্রাপ্ত হইয়া রাগ করিল। মহেন্দ্র কহিল, “তার চেয়ে তুমি স্বয়ং দিনরাত্রি আমাকে চোখে চোখে রাখিয়া পাহারা দাও, দেখো আমি এক্‌জামিনের পড়া মুখস্থ করি কি না।”

অতি সহজেই সেই কথা স্থির হইল। চোখে চোখে পাহারার কার্য কিরূপ ভাবে নির্বাহ হইত তাহার বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া অনাবশ্যক, কেবল এইটুকু বলিলেই যথেষ্ট হইবে যে, সে বৎসর মহেন্দ্র পরীক্ষায় ফেল করিল এবং চারুপাঠের বিস্তারিত বর্ণনা সত্ত্বেও পুরুভুজ সম্বন্ধে আশার অনভিজ্ঞতা দূর হইল না।

এইরূপ অপূর্ব পঠন-পাঠন-ব্যাপার যে সম্পূর্ণ নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হইয়াছিল তাহা বলিতে পারি না। বিহারী মাঝে মাঝে আসিয়া অত্যন্ত গোল বাধাইয়া দিত। “মহিনদা মহিনদা” করিয়া সে পাড়া মাথায় করিয়া তুলিত। মহেন্দ্রকে তাহার শয়নগৃহের বিবর হইতে টানিয়া না বাহির করিয়া সে কোনোমতেই ছাড়িত না। পড়ায় শৈথিল্য করিতেছে বলিয়া সে মহেন্দ্রকে বিস্তর ভর্ৎসনা করিত। আশাকে বলিত, “বউঠান্‌, গিলিয়া খাইলে হজম হয় না, চিবাইয়া খাইতে হয়। এখন সমস্ত অন্ন এক গ্রাসে গিলিতেছ, ইহার পরে হজমি গুলি খুঁজিয়া পাইবে না।”

মহেন্দ্র বলিত, “চুনি ও কথা শুনিয়ো না– বিহারী আমাদের সুখে হিংসা করিতেছে।”

বিহারী বলিত, “সুখ যখন তোমার হাতেই আছে, তখন এমন করিয়া ভোগ করো যাহাতে পরের হিংসা না হয়।”

মহেন্দ্র উত্তর করিত, “পরের হিংসা পাইতে যে সুখ আছে। চুনি, আর-একটু হইলেই আমি গর্দভের মতো তোমাকে বিহারীর হাতে সমর্পণ করিতেছিলাম।”

বিহারী রক্তবর্ণ হইয়া বলিয়া উঠিত, “চুপ!”

এই-সকল ব্যাপারে আশা মনে মনে বিহারীর উপরে ভারি বিরক্ত হইত। এক সময়ে তাহার সহিত বিহারীর বিবাহ-প্রস্তাব হইয়াছিল বলিয়াই বিহারীর প্রতি তাহার একপ্রকার বিমুখ ভাব ছিল, বিহারী তাহা বুঝিত এবং মহেন্দ্র তাহা লইয়া আমোদ করিত।

রাজলক্ষ্মী বিহারীকে ডাকিয়া দুঃখ করিতেন। বিহারী কহিত, “মা, পোকা যখন গুটি বাঁধে তখন তত বেশি ভয় নয়, কিন্তু যখন কাটিয়া উড়িয়া যায় তখন ফেরানো শক্ত। কে মনে করিয়াছিল, ও তোমার বন্ধন এমন করিয়া কাটিবে।”

মহেন্দ্রের ফেল-করা সংবাদে রাজলক্ষ্মী গ্রীষ্মকালের আকস্মিক অগ্নিকাণ্ডের মতো দাউ দাউ করিয়া জ্বলিয়া উঠিলেন, কিন্তু তাহার গর্জন এবং দাহনটা সম্পূর্ণ ভোগ করিলেন অন্নপূর্ণা। তাঁহার আহারনিদ্রা দূর হইল।

chokher bali 5

Grasses that have grown dry and yellow during a drought do not wait one moment once it rains and grow fast in defiance of the lengthy period of want. They cast aside all their former weakness and stand tall establishing their position among the others around them; this was the same thing that was happening to Asha. Where she had been bound by ties of blood, she had never been able to claim any rights of belonging, but today in her new home among strangers, she found one of the closest of relationships and unalloyed rights without having to ask for them. When her husband crowned this neglected orphaned creature as a goddess in his world, she did not take long to rise and accept her position of glorious fortune on her throne at her husband’s feet, putting aside all the customary shyness of a new bride.

That afternoon when Rajlakshmi saw this newly arrived girl take up that cherished position with an air of accustomed ease, she came downstairs in an unbearable state of excitement. She went to Annapurna to vent her pent up fury, saying, ‘Go and have a look, your princess has brought such regal airs from her own family! If only his father were alive…’

Annapurna was hurt and said, ‘Sister, when she misbehaves, you must teach your daughter-in-law, even discipline her, why ask me?’

Rajlakshmi snapped like a taut bow saying, ‘My daughter-in-law? While you are playing her ally in this household, why should she listen to me!’

Annapurna then went to Mahendra’s room, warning them of her presence with loud footsteps. She said to Asha, ‘Will you shame me like this, you wretch? You have no sense of decency or of time, nor of what is appropriate, piling all the housework on your old mother-in-law and sitting here as though on holiday! It is my misfortune that I brought you into this family!’

As she spoke, she wept and Asha stood with bowed head, beginning to cry quietly as she picked at her clothes.

Mahendra said, ‘Aunt, why are you accusing her unjustly? I am the one who has made her stay with me here.’

Annapurna asked, ‘Is that the right thing to do? She is still just a girl, an orphan, she has never learned the right ways from a mother, what does she know of what right and wrong are? What kind of behavior are you teaching her?’

Mahendra said, ‘See, I have bought a slate tablet and books for her. I will teach her to read and write, and I don’t care if people talk about this or if you or anyone else feels angry!’

Annapurna said, ‘Do you really have to teach her all day? An hour or so in the evening should be enough I would have thought.’

Mahendra answered, ‘It is not that easy Aunt! One must spend some time in studying.’

Greatly annoyed, Annapurna left the room. Asha was following her out slowly when Mahendra went and stood in her way, barring her from leaving. He refused to heed the plea in her moist tearful eyes and said, ‘Wait, the time lost in sleeping must be made up.’

There probably are some serious and respectable people who are ignorant enough to think that Mahendra had wasted his time sleeping when he should have been teaching Asha; I must inform that person that the mode of study under Mahendra’s supervision was such that no school inspector would ever approve of it.

Asha had believed her husband when he said that it was not easy for her to study for various reasons, but she knew it was essential to obey her husband’s wishes. She would gather her wayward thoughts, sit down at one corner of the mat on the floor with a very serious face and read aloud from the text books as she swayed in concentration. At the other end of the room, her teacher would be studying a medical book at a small table, keeping an occasional eye on his ward’s intense efforts.

He would then suddenly close his book and call her by her nick name, ‘Chuni,’ Asha would look up startled.

‘Let me see which part you are up to?’

Asha was afraid that Mahendra would test her. There was little chance of her ever answering these questions successfully. Her unschooled mind had failed to submit to the promise of scholarliness of the Scholar’s Aid book and the more she tried to learn about termites, the more the letters crowded and wove in front of her eyes like ranks of black ants.

Asha would go fearfully and stand in front of Mahendra’s chair as though she had done something wrong. Mahendra would pull her close by the waist and hold her tightly as he held the book in his other hand and ask, ‘How much did you study today?’ When Asha showed him he would say petulantly, ‘That is a lot! Do you want to know how much I have studied?’ and he would trace out the heading of a chapter on his own medical text book. Asha’s eyes would widen in amazement as she would say, ‘But what did you do all this time?’ Mahendra would turn her face towards him by holding her chin and say, ‘I was thinking about someone, but that cruel person was studying a rather pleasant account of termites at the same time!’ Asha could have easily given a suitable answer to this unjust accusation, but she had to silently admit defeat as this was a contest of love.

This incident proves that this school of Mahendra’s did not follow any of the rules of either government run or privately owned schools.

On some days in Mahendra’s absence, Asha would be trying to focus on her studies when he would come home and surprise her from the back, his hands placed across her eyes. He would then take her book away saying, ‘You cruel girl, how dare you study while I am away instead of thinking about me?’

Asha would reply, ‘Would you rather keep me illiterate then?’

‘What kind of progress am I making in my own studies? Thanks to you, I may add,’ answered Mahendra to this.

Asha felt very hurt when she heard this and made as if to leave instantly, saying, ‘What have I done to prevent you from studying?’

Mahendra held her hand and said, ‘What do you know of that? I cannot study as easily as you do when I am not with you.’

Serious allegations indeed! Of necessity there must be some tears to follow this, like shortlived autumnal showers and soon even these fade away in the sunshine of loving affections.

When the teacher is the biggest obstacle in the path of education, how can an innocent student make any progress along that difficult route? Occasionally when Asha thought of her aunt’s bitter admonishments – she too knew that the study sessions were just a ruse; when she saw her mother-in-law, she would cringe in shame. But her mother-in-law never asked her to do anything nor offered any guidance and when Asha went to her assistance without being asked, she would react immediately saying, ‘What are you doing? Go! Go to the bedroom, you must be missing out on your studies!’

Eventually Annapurna said to Asha, ‘I can see the great education you are getting, now will you not let Mahin become a doctor either?’

This made Asha steel her mind and she said to Mahendra, ‘You are not studying for your examinations, I have decided to go and stay with my aunt in her downstairs rooms from today.’

Such renunciation at this age! Self exile from her own bedroom to her aunt’s rooms! Even as she said the words, tears welled in her eyes and her little mouth quivered uncontrollably as her voice cracked with emotion.

Mahendra said, ‘Then let us go, but if we stay in her rooms, she will have to come upstairs to our bedroom.’

Asha was angry when he made fun of her generous offer. Mahendra said, ‘Why do you not keep me under close watch all the time, making sure that I do study for the examinations?’

This was quite easily decided. It is unnecessary to describe in great detail how this close invigilation was carried out, I feel sure you will understand if I tell you that Mahendra failed in his examinations that year and despite all the lengthy descriptions in her text books Asha remained completely unconscious of the characteristics of Purubhuja.

I cannot say that this unique mode of studying was allowed to be carried on without opposition from any one. Occasionally Bihari would come and create quite an upheaval by calling Mohin loudly enough for the whole neighbourhood to hear. He would not stop until his friend had come out of his own room. He rebuked Mahendra very harshly over the neglect to his education.

He said to Asha, ‘You know, one must not swallow one’s food in one enormous gulp, it is far better for the process of digestive health to chew each mouthful slowly. What you are doing now is eating all your food at one go, later there will be no medicine strong enough to fix your heart burn from this over indulgence.’

Mahendra said, ‘Do not listen to him Chuni, he is jealous of our bliss.’

Bihari said, ‘When you already have the key to happiness, try to enjoy it so that others do not feel envious.’

Mahendra would reply, ‘But there is such pleasure in arousing the envy of others. Chuni, to think that I was almost going to gift you to Bihari like an idiot!’

Bihari turned red and said, ‘Quiet!’

Asha would get very annoyed with Bihari over these events. Bihari understood that she had a negative attitude towards Bihari because they had once been considered as suitable for each other and Mahendra used to joke about it.

Rajlakshmi would speak of her sorrow with Bihari. He would tell her, ‘Ma, when an insect spins a cocoon, there is little to fear but once it emerges to fly off, one cannot bring it back. Who ever knew that he would escape your bonds like this!’

When she heard of Mahendra’s failure in the examinations, Rajlakshmi flared up like a sudden summer blaze but the ferocity of her anger and outrage was borne completely by Annapurna who now became so distraught she could hardly eat or drink.

3 thoughts on “Chokher Bali 5/চোখের বালি ৫

Comments are closed.