Chokher Bali 22, Part 1/চোখের বালি ২২, প্রথম অংশ

২২

মহেন্দ্র ঘরে ফিরিয়া আসিবামাত্র তাহার মুখ দেখিয়াই আশার মনের সমস্ত সংশয় ক্ষণকালের কুয়াশার মতো এক মুহূর্তেই কাটিয়া গেল। নিজের চিঠির কথা স্মরণ করিয়া লজ্জায় মহেন্দ্রের সামনে সে যেন মুখ তুলিতেই পারিল না। মহেন্দ্র তাহার উপরে ভর্ৎসনা করিয়া কহিল, “এমন অপবাদ দিয়া চিঠিগুলা লিখিলে কী করিয়া।”

বলিয়া পকেট হইতে বহুবার পঠিত সেই চিঠি তিনখানি বাহির করিল। আশা ব্যাকুল হইয়া কহিল, “তোমার পায়ে পড়ি, ও চিঠিগুলো ছিঁড়িয়া ফেলো।” বলিয়া মহেন্দ্রের হাত হইতে চিঠিগুলা লইবার জন্য ব্যস্ত হইয়া পড়িল। মহেন্দ্র তাহাকে নিরস্ত করিয়া সেগুলি পকেটে পুরিল। কহিল, “আমি কর্তব্যের অনুরোধে গেলাম, আর তুমি আমার অভিপ্রায় বুঝিলে না? আমাকে সন্দেহ করিলে?”

আশা ছল-ছল চোখে কহিল, “এবারকার মতো আমাকে মাপ করো। এমন আর কখনোই হইবে না।”

মহেন্দ্র কহিল, “কখনো না?”

আশা কহিল, “কখনো না।”

তখন মহেন্দ্র তাহাকে টানিয়া লইয়া চুম্বন করিল। আশা কহিল, “চিঠিগুলা দাও, ছিঁড়িয়া ফেলি।”

মহেন্দ্র কহিল, “না, ও থাক্‌!”

আশা সবিনয়ে মনে করিল, “আমার শাস্তিস্বরূপ এ চিঠিগুলি উনি রাখিলেন।’

এই চিঠির ব্যাপারে বিনোদিনীর উপর আশার মনটা একটু যেন বাঁকিয়া দাঁড়াইল। স্বামীর আগমনবার্তা লইয়া সে সখীর কাছে আনন্দ করিতে গেল না– বরঞ্চ বিনোদিনীকে একটু যেন এড়াইয়া গেল। বিনোদিনী সেটুকু লক্ষ্য করিল এবং কাজের ছল করিয়া একেবারে দূরে রহিল।

মহেন্দ্র ভাবিল, “এ তো বড়ো অদ্ভুত। আমি ভাবিয়াছিলাম, এবার বিনোদিনীকে বিশেষ করিয়াই দেখা যাইবে– উল্‌টা হইল? তবে সে চিঠিগুলার অর্থ কী।’

নারীহৃদয়ের রহস্য বুঝিবার কোনো চেষ্টা করিবে না বলিয়াই মহেন্দ্র মনকে দৃঢ় করিয়াছিল– ভাবিয়াছিল, বিনোদিনী যদি কাছে আসিবার চেষ্টা করে, তবু আমি দূরে থাকিব।’ আজ সে মনে মনে কহিল, “না, এ তো ঠিক হইতেছে না। যেন আমাদের মধ্যে সত্যই কী একটা বিকার ঘটিয়াছে। বিনোদিনীর সঙ্গে সহজ স্বাভাবিক ভাবে কথাবার্তা আমোদপ্রমোদ করিয়া এই সংশয়াচ্ছন্ন গুমোটের ভাবটা দূর করিয়া দেওয়া উচিত।’

আশাকে মহেন্দ্র কহিল, “দেখিতেছি, আমিই তোমার সখীর চোখের বালি হইলাম। আজকাল তাঁহার আর দেখাই পাওয়া যায় না।”

আশা উদাসীন ভাবে উত্তর করিল, “কে জানে, তাহার কী হইয়াছে।”

এ দিকে রাজলক্ষ্মী আসিয়া কাঁদো-কাঁদো হইয়া কহিলেন, “বিপিনের বউকে আর তো ধরিয়া রাখা যায় না।”

মহেন্দ্র চকিত ভাব সামলাইয়া কহিল, “কেন, মা।”

রাজলক্ষ্মী কহিলেন, “কি জানি বাছা, সে তো এবার বাড়ি যাইবার জন্য নিতান্তই ধরিয়া পড়িয়াছে। তুই তো কাহাকেও খাতির করিতে জানিস না। ভদ্রলোকের মেয়ে পরের বাড়িতে আছে, উহাকে আপনার লোকের মতো আদর-যত্ন না করিলে থাকিবে কেন।”

বিনোদিনী শোবার ঘরে বসিয়া বিছানার চাদর সেলাই করিতেছিল। মহেন্দ্র প্রবেশ করিয়া ডাকিল, “বালি।”

বিনোদিনী সংযত হইয়া বসিল। কহিল, “কী, মহেন্দ্রবাবু।”

মহেন্দ্র কহিল, “কী সর্বনাশ। মহেন্দ্র আবার বাবু হইলেন কবে।”

বিনোদিনী আবার চাদর সেলাইয়ের দিকে নতচক্ষু নিবদ্ধ রাখিয়া কহিল, “তবে কী বলিয়া ডাকিব।”

মহেন্দ্র কহিল, “তোমার সখীকে যা বল– চোখের বালি।”

বিনোদিনী অন্যদিনের মতো ঠাট্টা করিয়া তাহার কোনো উত্তর দিল না– সেলাই করিয়া যাইতে লাগিল।

মহেন্দ্র কহিল, “ওটা বুঝি সত্যকার সম্বন্ধ হইল, তাই ওটা আর পাতানো চলিতেছে না!”

বিনোদিনী একটু থামিয়া দাঁত দিয়া সেলাইয়ের প্রান্ত হইতে খানিকটা বাড়তি সুতা কাটিয়া ফেলিয়া কহিল, “কী জানি, সে আপনি জানেন।”

বলিয়াই তাহার সর্বপ্রকার উত্তর চাপা দিয়া গম্ভীরমুখে কহিল, “কালেজ হইতে হঠাৎ ফেরা হইল যে?”

মহেন্দ্র কহিল, “কেবল মড়া কাটিয়া আর কত দিন চলিবে।”

আবার বিনোদিনী দন্ত দিয়া সুতা ছেদন করিল এবং মুখ না তুলিয়াই কহিল, “এখন বুঝি জিয়ন্তের আবশ্যক।”

মহেন্দ্র স্থির করিয়াছিল, আজ বিনোদিনীর সঙ্গে অত্যন্ত সহজ স্বাভাবিক ভাবে হাস্যপরিহাস উত্তরপ্রত্যুত্তর করিয়া আসর জমাইয়া তুলিবে। কিন্তু এমনি গাম্ভীর্যের ভার তাহার উপর চাপিয়া আসিল যে, লঘু জবাব প্রাণপণ চেষ্টাতেও মুখের কাছে জোগাইল না। বিনোদিনী আজ কেমন একরকম কঠিন দূরত্ব রক্ষা করিয়া চলিতেছে দেখিয়া, মহেন্দ্রের মনটা সবেগে তাহার দিকে অগ্রসর হইতে লাগিল– ব্যবধানটাকে কোনো একটা নাড়া দিয়া ভূমিসাৎ করিতে ইচ্ছা হইল। বিনোদিনীর শেষ বাক্যঘাতের প্রতিঘাত না দিয়া হঠাৎ তাহার কাছে আসিয়া বসিয়া কহিল, “তুমি আমাদের ছাড়িয়া চলিয়া যাইতেছে কেন। কোনো অপরাধ করিয়াছি?”

বিনোদিনী তখন একটু সরিয়া সেলাই হইতে মুখ তুলিয়া দুই বিশাল উজ্জ্বল চক্ষু মহেন্দ্রের মুখের উপর স্থির রাখিয়া কহিল, “কর্তব্যকর্ম তো সকলেরই আছে। আপনি যে সকল ছাড়িয়া কালেজের বাসায় যান, সে কি কাহারো অপরাধে। আমারও যাইতে হইবে না? আমারও কর্তব্য নাই?”

মহেন্দ্র ভালো উত্তর অনেক ভাবিয়া খুঁজিয়া পাইল না। কিছুক্ষণ থামিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “তোমার এমন কী কর্তব্য যে না গেলেই নয়।”

বিনোদিনী অত্যন্ত সাবধানে সূচিতে সুতা পরাইতে পরাইতে কহিল, “কর্তব্য আছে কি না, সে নিজের মনই জানে। আপনার কাছে তাহার আর কী তালিকা দিব।”

মহেন্দ্র গম্ভীর চিন্তিত মুখে জানালার বাহিরে একটা সুদূর নারিকেলগাছের মাথার দিকে চাহিয়া অনেকক্ষণ চুপ করিয়া বসিয়া রহিল। বিনোদিনী নিঃশব্দে সেলাই করিয়া যাইতে লাগিল। ঘরে ছুঁচটি পড়িলে শব্দ শোনা যায়, এমনি হইল। অনেকক্ষণ পরে মহেন্দ্র হঠাৎ কথা কহিল। অকস্মাৎ নিঃশব্দতাভঙ্গে বিনোদিনী চমকিয়া উঠিল–তাহার হাতে ছুঁচ ফুটিয়া গেল।

মহেন্দ্র কহিল, “তোমাকে কোনো অনুনয়-বিনয়েই রাখা যাইবে না?”

বিনোদিনী তাহার আহত অঙ্গুলি হইতে রক্তবিন্দু শুষিয়া লইয়া কহিল, “কিসের জন্য এত অনুনয়-বিনয়। আমি থাকিলেই কী, আর না থাকিলেই কী। আপনার তাহাতে কী আসে যায়।”

বলিতে বলিতে গলাটা যেন ভারি হইয়া আসিল; বিনোদিনী অত্যন্ত মাথা নিচুকরিয়া সেলাইয়ের প্রতি একান্ত মনোনিবেশ করিল– মনে হইল, হয়তো বা তাহার নতনেত্রের পল্লবপ্রান্তে একটুখানি জলের রেখা দেখা দিয়াছে। মাঘের অপরাহ্ন তখন সন্ধ্যার অন্ধকারে মিলাইবার উপক্রম করিতেছিল।

মহেন্দ্র মুহূর্তের মধ্যে বিনোদিনীর হাত চাপিয়া ধরিয়া রুদ্ধ সজলস্বরে কহিল, “যদি তাহাতে আমার আসে যায়, তবে তুমি থাকিবে?”

বিনোদিনী তাড়াতাড়ি হাত ছাড়াইয়া লইয়া সরিয়া বসিল। মহেন্দ্রের চমক ভাঙিয়া গেল। নিজের শেষ কথাটা ভীষণ ব্যঙ্গের মতো তাহার নিজের কানে বারংবার প্রতিধ্বনিত হইতে লাগিল। অপরাধী জিহ্বাকে মহেন্দ্র দন্ত দ্বারা দংশন করিল– তাহার পর হইতে রসনা নির্বাক হইয়া রহিল।

এমন সময় এই নৈঃশব্দ্যপরিপূর্ণ ঘরের মধ্যে আশা প্রবেশ করিল। বিনোদিনী তৎক্ষণাৎ যেন পূর্ব-কথোপকথনের অনুবৃত্তিস্বরূপে হাসিয়া মহেন্দ্রকে বলিয়া উঠিল, “আমার গুমর তোমরা যখন এত বাড়াইলে, তখন আমারও কর্তব্য, তোমাদের একটা কথা রাখা। যতক্ষণ না বিদায় দিবে ততক্ষণ রহিলাম।”

আশা স্বামীর কৃতকার্যতায় উৎফুল্ল হইয়া উঠিয়া সখীকে আলিঙ্গন করিয়া ধরিল। কহিল, “তবে এই কথা রহিল। তাহা হইলে তিন-সত্য করো, যতক্ষণ না বিদায় দিব ততক্ষণ থাকিবে, থাকিবে, থাকিবে।”

Portrait-of-a-Lady---Kalighat-Painting-Bengal-c1860's

22

It took one look at Mahendra when he returned home for all the doubts in Asha’s mind to disappear like a morning mist. She could barely bring herself to look at Mahendra when she thought of the letters she had written. Mahendra scolded her and said, ‘How could you write all those things about me!’

He then took the three letters that he had read so often from his pocket. Asha anxiously pleaded, ‘Please, I beg you, you must destroy those!’ She tried to take them from him but he stopped her and said only after putting them back, ‘I went because it was my duty but you did not try to understand me. Did you have any suspicions about me?’

Tearfully Asha said, ‘Please forgive me this time, I will never do this again.’

Mahendra asked, ‘Never again?’

Asha promised, ‘Never!’

Mahendra then drew her close and kissed her. Asha asked, ‘Give me the letters, I will destroy them.’

Mahendra said, ‘No, let them be.’

Asha thought to herself, ‘He is going to hold onto those as a warning to me.’

Asha grew annoyed with Binodini over this matter of the letters. She did not go to her friend as was her habit with the good news of her husband’s homecoming and avoided her instead. Binodini noticed this and stayed away on the pretext of work.

Mahendra thought to himself, ‘This is strange! I had thought she would find excuses to come to see me more often, but it seems the opposite is happening. What did she mean by those letters then?’

Mahendra had steeled himself against any attempts to understand the secret ways of women, he had even decided to stay away from Bindodini in the event of her approaching him. But now he told himself, ‘This is not right. Something seems to be broken between the two of us. I must try and make this air of forced unfamiliarity disappear by talking to her normally.’

He said to Asha, ‘It seems I am now the grit in your friend’s eyes. She never comes here any more.’

Asha answered casually, ‘Who cares? There is always something going on.’

One day Rajlakshmi came to Mahendra in tears and said, ‘Bipin’s wife says she will not stay any longer.’

Mahendra recovered from his surprise and asked, ‘But why Mother?’

Rajlakshmi answered, ‘I do not know, but this time she really is insisting on going home. You deliberately do not give people the respect due to them. How can she stay with everyone behaving so coldly with her?’

Mahendra went to Binodini’s room where she was sewing a hem on a bedsheet and spoke to her, ‘Bali?’

Binodini sat up straighter and said, ‘What is it sir?’

Mahendra declared, ‘Whatever next! Since when have you been addressing me like that?’

Binodini fixed her downcast eyes on her sewing once again and said, ‘Then how should I address you?’

Mahendra: ‘The same way you address your friend, Chokher Bali.’

Binodini did not answer with her customary humour and kept stitching.

Mahendra: ‘Perhaps that is our true relationship, the grit in the eye, and thus we cannot use them as names any more.’

Binodini paused, cut the thread with her teeth and said, ‘How do I know, it is all up to you.’
Before he could come up with an answer, she quickly said, ‘Why did you suddenly come back home now?’

Mahendra answered, ‘How long can one be satisfied with the company of dead people?’

Binodini cut the thread once again with her teeth and murmured without raising her face, ‘So now you must hack into the hearts of the living!’

Mahendra had decided that he would engage Binodini in jest and conversation as usual. But she was in such a serious mood that he could not think of anything light and frivolous in answer. Seeing that she was bent on preserving a cold and hardened distance between the two of them, all he could think of was to do something to shake her implacable calm. His mind rushed headlong towards her. Instead of answering her previous words, he suddenly moved closer to her and asked, ‘Why are you leaving us? Have I done something wrong?’

Binodini moved slightly and raised her huge burning eyes to Mahendra, looking at him steadily as she said, ‘Everyone has responsibilities. When you went to the lodging house leaving us all, was that because we had done something wrong? Can I not go as well? Do I not have responsibilities?’

Mahendra could not think of a suitable answer. He asked after some time, ‘What responsibility have you got that you must leave?’

Binodini threaded her needle very carefully and said, ‘Only I know what responsibilities I have. Why should I have to list them for you?’

Mahendra sat quietly for a long time looking at a distant coconut palm through the window. He looked worried. Binodini continued with her sewing in silence. If she had dropped the needle at that moment it would have broken the silence. Mahendra spoke up after a long time. Binodini was startled by the sudden noise and pricked herself with her needle.

Mahendra said, ‘Will nothing convince you to stay?’

Binodini sucked the blood from her finger and said, ‘Why are you pleading like this? What difference will it make whether I stay or I go? What do you care?’

Her voice seemed to break slightly as she said this; she bent her head very close to her needlework and paid great attention to it – there was a glint of tears at the ends of the sweep of her eyelashes. The winter evening was giving way to the darkness of night outside the window.

Mahendra suddenly grabbed her hand and said in a choked voice, ‘If it did make a difference to me, would you stay?’

Binodini pulled her hand away quickly and moved even further from Mahendra. He was suddenly deeply aware of what he had done. His words seemed to mock him repeatedly like some horrible mistake. He bit his tongue and silenced it into shame.

At this time, Asha entered the silent room. Binodini immediately said to Mahendra, as though this had been what they had discussed only minutes before, ‘When you are all raising me to such heights, it is also my duty to give in to your request. I promise to not leave unless I am sent away.’

Asha was overjoyed at her husband’s success and embraced her friend. She said, ‘That is a promise that you must make to me three times, unless sent away, you will stay, you will stay, you will stay!’