রবিবার/ Robibar/Sunday

ছেলে মাকে গিয়ে বললে, ‘মা, দেবতাকে অনেককাল ছেড়েছি, এমন অবস্থায় আমাকে দেবতার ছাড়াটা নেহাত বাহুল্য। কিন্তু জানি বেড়ার ফাঁকের মধ্য দিয়ে হাত বাড়ালে তোমার প্রসাদ মিলবেই। ঐখানে কোনো দেবতার দেবতাগিরি খাটে না, তা যত বড়ো জাগ্রত হোন-না তিনি।’

মা চোখের জল মুছতে মুছতে আঁচল থেকে খুলে ওকে একখানি নোট দিতে গেলেন। ও বললে, ‘ঐ নোটখানায় যখন আমার অত্যন্ত বেশি দরকার আর থাকবে না তখনই তোমার হাত থেকে নেব। অলক্ষ্মীর সঙ্গে কারবার করতে জোর লাগে, ব্যাঙ্কনোট হাতে নিয়ে তাল ঠোকা যায় না।’

অভীকের সম্বন্ধে আরো দুটো-একটা কথা বলতে হবে। জীবনে ওর দুটি উলটো জাতের শখ ছিল, এক কলকারখানা জোড়াতাড়া দেওয়া, আর-এক ছবি আঁকা। ওর বাপের ছিল তিনখানা মোটরগাড়ি, তাঁর মফস্বল-অভিযানের বাহন। যন্ত্রবিদ্যায় ওর হাতেখড়ি সেইগুলো নিয়ে। তা ছাড়া তাঁর ক্লায়েন্টের ছিল মোটরের কারখানা, সেইখানে ও শখ ক’রে বেগার খেটেছে অনেকদিন।

অভীক ছবি আঁকা শিখতে গিয়েছিল সরকারী আর্টস্কুলে। কিছুকালের মধ্যেই ওর এই বিশ্বাস দৃঢ় হল যে, আর বেশিদিন শিখলে ওর হাত হবে কলে-তৈরি, ওর মগজ হবে ছাঁচে-ঢালা। ও আর্টিস্ট, সেই কথাটা প্রমাণ করতে লাগল নিজের জোর আওয়াজে। প্রদর্শনী বের করলে ছবির, কাগজের বিজ্ঞাপনে তার পরিচয় বেরল আধুনিক ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ আর্টিস্ট অভীককুমার, বাঙালি টিশিয়ান। ও যতই গর্জন করে বললে ‘আমি আর্টিস্ট’, ততই তার প্রতিধ্বনি উঠতে থাকল একদল লোকের ফাঁকা মনের গুহায়, তারা অভিভূত হয়ে গেল। শিষ্য এবং তার চেয়ে বেশি সংখ্যক শিষ্যা জমল ওর পরিমণ্ডলীতে। তারা বিরুদ্ধদলকে আখ্যা দিল ফিলিস্টাইন। বলল বুর্জোয়া।

অবশেষে দুর্দিনের সময় অভীক আবিষ্কার করলে যে তার ধনী পিতার তহবিলের কেন্দ্র থেকে আর্টিস্টের নামের ‘পরে যে রজতচ্ছটা বিচ্ছুরিত হত তারই দীপ্তিতে ছিল তার খ্যাতির অনেকখানি উজ্জ্বলতা। সঙ্গে সঙ্গে সে আর-একটি তত্ত্ব আবিষ্কার করেছিল যে অর্থভাগ্যের বঞ্চনা উপলক্ষ করে মেয়েদের নিষ্ঠায় কোনো ইতরবিশেষ ঘটে নি। উপাসিকারা শেষ পর্যন্ত দুই চক্ষু বিস্ফারিত করে উচ্চমধুর কণ্ঠে তাকে বলছে আর্টিস্ট। কেবল নিজেদের মধ্যে পরস্পরকে সন্দেহ করেছে যে স্বয়ং তারা দুই-একজন ছাড়া বাকি সবাই আর্টের বোঝে না কিছুই, ভণ্ডামি করে, গা জ্বলে যায়।

অভীকের জীবনে এর পরবর্তী ইতিহাস সুদীর্ঘ এবং অস্পষ্ট। ময়লা টুপি আর তেলকালিমাখা নীলরঙের জামা-ইজের প’রে বার্ন কোম্পানির কারখানায় প্রথমে মিস্ত্রিগিরি ও পরে হেডমিস্ত্রির কাজ পর্যন্ত চালিয়ে দিয়েছে। মুসলমান খালাসিদের দলে মিশে চার পয়সার পরোটা আর তার চেয়ে কম দামের শাস্ত্রনিষিদ্ধ পশুমাংস খেয়ে ওর দিন কেটেছে সস্তায়। লোকে বলেছে, ও মুসলমান হয়েছে; ও বলেছে, মুসলমান কি নাস্তিকের চেয়েও বড়ো। হাতে যখন কিছু টাকা জমল তখন অজ্ঞাতবাস থেকে বেরিয়ে এসে আবার সে পূর্ণ পরিস্ফুট আর্টিস্টরূপে বোহেমিয়ানি করতে লেগে গেল। শিষ্য জুটল, শিষ্যা জুটল। চশমাপরা তরুণীরা তার স্টুডিয়োতে আধুনিক বে-আব্রু রীতিতে যে-সব নগ্নমনস্তত্ত্বের আলাপ-আলোচনা করতে লাগল, ঘন সিগারেটের ধোঁয়া জমল তার কালিমা আবৃত করে। পরস্পর পরস্পরের প্রতি কটাক্ষপাত ও অঙ্গুলিনির্দেশ করে বললে, পজিটিভ্‌লি ভাল্‌গর।

                                                                                     Sunday

The son went and said to his mother, ‘Ma, I have forsaken the gods a long time ago; thus their forsaking me now is completely unnecessary. But I know that I will receive your blessings whenever I reach through the gaps of the fence that separate us. No divine intervention will apply there, no matter how mighty they are.’

As she dried her eyes with her sari his mother untied a knot and tried to give him some money. He said, ‘I will take that money from you only when I have the very least need of it. One needs strength to deal with evil, one cannot keep up with banknotes in hand.’

 Here we have to say a couple of things about Abheek. He had two quite disparate hobbies; one was repairing machinery and the other was painting. His father had three cars which provided transport during his travels in the country. His initiation into mechanics was through these. His father also had a client who had a automobile factory and Abheek had voluntarily spent a lot of time there working for free.

 He had gone to study art at the Government Art School. Within a few days he began to firmly believe that if he continued to learn any longer his hand would become mechanical and his ideas manufactured by someone else. He began to prove that he was an artist in his own voice. Before an exhibition of his paintings, the newspapers wrote of him as modern India’s greatest artist Abheek Kumar, the Bengali Titian. The more he roared, ‘I am an artist!’ the more his words reverberated in the empty caves of some minds and the owners of those minds were overwhelmed. He became surrounded by devotees who were largely female. They called his detractors philistines and described them as bourgeois.

 But eventually when the dark times came, Abheek discovered that a great part of the glow surrounding his fame came from the light cast upon the artist’s name by the silvery sheen of his wealthy father’s bank account. He had also discovered that the devotion of women did not waver a great deal with the ebb of his financial fortunes. They called him an artist to the very end in loud sweet tones with widened eyes. But in private they each suspected the others of not really knowing anything about art at all, excluding themselves of course; the rest were all fakes who were to be abhorred.

 The next part of Abheek’s life story is lengthy and unclear. He worked as a mechanic and then as the head technician of Burn Company in a dirty cap and grease stained blue overalls. He ate cheaply with the Muslim labourers, buying meals of bread at four paise and meat that was not strictly allowed by the tenets of the scriptures for even less. People talked, saying he has converted to Islam; he asked them whether that was worse than becoming an atheist. When he had saved enough he returned from his exile to become an artist and lead a Bohemian lifestyle again. Young women in glasses began to discuss the explicit psychological advances of the time in a frank manner, their lack of shame hidden under a dense fog of cigarette smoke. They nodded at each other and pointed fingers declaring everyone else to be positively vulgar.