বীর গুরু/ Bir Guru/ The Brave Guru

The history of the Sikhs during Mughal rule and particularly by the orders of Aurangzeb is full of stories of triumph and bravery in the face of unspeakable cruelty and torture. This is an excerpt from one of those stories; on the occasion of Nanak Jayanti and the martyrdom of Teg Bahadur, this seemed appropriate.

 

বীর গুরু

বনের একটা গাছে আগুন লাগিলে অন্যান্য যে-সকল গাছে উত্তাপ প্রচ্ছন্ন ছিল সেগুলাও যেমন আগুন হইয়া উঠে, তেমনি যে জাতির মধ্যে একজন বড়োলোক উঠে, সে জাতির মধ্যে দেখিতে দেখিতে মহত্ত্বের শিখা ব্যাপ্ত হইয়া পড়ে, তাহার গতি আর কেহই রোধ করিতে পারে না।

নানক যে মহত্ত্ব লইয়া জন্মিয়াছিলেন সে তাঁহার মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গেই নিবিয়া গেল না। তিনি যে ধর্মের সংগীত, যে আনন্দ ও আশার গান গাহিলেন, তাহা ধ্বনিত হইতে লাগিল। কত নূতন নূতন গুরু জাগিয়া উঠিয়া শিখদিগকে মহত্ত্বের পথে অগ্রসর করিতে লাগিলেন।

তখনকার যথেচ্ছাচারী মুসলমান রাজারা অনেক অত্যাচার করিলেন, কিন্তু নবধর্মোৎসাহে দীপ্ত শিখ জাতির উন্নতির পথে বাধা দিতে পারিলেন না। বাধা ও অত্যাচার পাইয়া শিখেরা কেমন করিয়া বীর জাতি হইয়া উঠিল তাহার গল্প বলি শুন।

নানকের পর পঞ্জাবে আট জন গুরু জন্মিয়াছেন, আট জন গুরু মরিয়াছেন, নবম গুরুর নাম তেগ্বাহাদুর। আমরা যে সময়কার কথা বলিতেছি তখন নিষ্ঠুর আরঞ্জীব দিল্লীর সম্রাট ছিলেন। রামরায় বলিয়া তেগ্বাহাদুরের একজন শত্রু সম্রাটের সভায় বাস করিত। তাহারই কথা শুনিয়া সম্রাট তেগ্বাহাদুরের উপরে ক্রুদ্ধ হইয়াছেন, তাঁহাকে ডাকিতে পাঠাইয়াছেন।

আরঞ্জীবের লোক যখন তেগ্বাহাদুরকে ডাকিতে আসিল তখন তিনি বুঝিলেন যে তাঁহার আর রক্ষা নাই। যাইবার সময়ে তিনি তাঁহার ছেলেকে কাছে ডাকিলেন। ছেলের নাম গোবিন্দ, তাহার বয়স চোদ্দ বৎসর। পূর্বপুরুষের তলোয়ার গোবিন্দের কোমরে বাঁধিয়া দিয়া তাহাকে বলিলেন, “তুমিই শিখেদের গুরু হইলে। সম্রাটের আদেশে ঘাতক আমাকে যদি বধ করে তো আমার শরীরটা যেন শেয়াল-কুকুরে না খায়! আর এই অন্যায় অত্যাচারের বিচার তুমি করিয়ো, ইহার প্রতিশোধ তুমি লইয়ো।’ বলিয়া তিনি দিল্লী চলিয়া গেলেন।

রাজসভায় তাঁহাকে তাঁহার গোপনীয় কথা সম্বন্ধে অনেক প্রশ্ন করা হইল। কেব বা বলিল, “আচ্ছা, তুমি যে মস্ত লোক তাহার প্রমাণস্বরূপ একটা অলৌকিক কারখানা দেখাও দেখি!’ তেগ্বাহাদুর বলিলেন, “সে তো আমার কাজ নহে। মানুষের কর্তব্য ঈশ্বরের শরণাপন্ন হইয়া থাকা। তবে তোমাদের অনুরোধে আমি একটা অদ্ভুত ব্যাপার দেখাইতে পারি। একটা কাগজে মন্ত্র লিখিয়া ঘাড়ে রাখিয়া দিব, সে ঘাড় তলোয়ারে বিচ্ছিন্ন হইবে না।’ এই বলিয়া মন্ত্র-লেখা কাগজ ঘাড়ে রাখিয়া তিনি ঘাড় পাতিয়া দিলেন। ঘাতক তরবারি উঠাইয়া আঘাত করিলে মাথা বিচ্ছিন্ন হইয়া গেল। কাগজ তুলিয়া লইয়া সকলে দেখিল, তাহাতে লেখা আছে, “শির দিয়া, সির নেহি দিয়া।’ অর্থাৎ মাথা দিলাম, গুপ্ত কথা দিলাম না।’ এইরূপে মাথা দিয়া তেগ্বাহাদুর রাজসভার প্রশ্নের হাত হইতে নিষ্কৃতি পাইলেন।

বালক, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
*****

The Brave Guru

Just as nearby trees that feel the heat can go up in flames when one tree catches fire in a forest, when a great man is born among a group of people the whole nation is illumined by the flame of that great spirit; no one can stop its progress.

The indomitable spirit that was Nanak’s did not die out with his death. The song of joy and hope that he sang resounded through the land. Teacher after teacher arose and led the Sikhs along the path to salvation.

The tyrannical Muslim rulers of the time committed many atrocities but they could not halt the advance of the Sikh nation, inflamed as they were by the teachings of their young faith. Let me tell you the story of how the Sikhs became a race of brave warriors by passing through obstacles and hardship.

Eight gurus or teachers had come out of the Punjab after Nanak; the ninth was Teg Bahadur. We are talking about the time when the cruel Aurangzeb was the emperor in Delhi. One of Teg Bahadur’s enemies Ram Rai, was a member of the Emperor’s court and it was he who filled the Emperor’s ears with falsehoods until Aurangzeb was incensed and sent for Teg.

When Teg saw the Emperor’s men at his door he knew he was doomed. Before leaving he called for his son. This child of fourteen was named Govind. Teg tied the sword that had served his ancestors to Govind’s waist and said to him, ‘You are now the guru to all Sikhs. If the executioner should slay me by the order of the Emperor, see to it that my body is not left to the mercy of jackals and dogs. You will have to right this wrong, you will have to take revenge.’ He then went to Delhi.

He was questioned over and over about his activities by the court. Some asked him, ‘Why do you not prove that you are a great leader by performing a miracle?’ Teg Bahadur said, ‘That is not my purpose. A man’s purpose is merely to seek God. But I can show you something unusual since you have asked. I will write an incantation on a piece of paper and place it on my neck and that will stop you from severing my head.’ He then placed the paper on his neck and bared his throat. When the executioner raised his sword and brought it down, his head rolled away. Someone picked up the paper and saw these words written there – ‘I gave up my head but not my beliefs.’ This was the manner in which Teg Bahadur found respite from the interrogation in the court.