Tag Archive | Arogyo

Arogyo 3: নির্জন রোগীর ঘর। খোলা দ্বার দিয়ে বাঁকা ছায়া পড়েছে শয্যায়

নির্জন রোগীর ঘর।

খোলা দ্বার দিয়ে

বাঁকা ছায়া পড়েছে শয্যায়।

শীতের মধ্যাহ্নতাপে তন্দ্রাতুর বেলা

চলেছে মন্থরগতি

শৈবালে দুর্বলস্রোত নদীর মতন।

মাঝে মাঝে জাগে যেন দূর অতীতের দীর্ঘশ্বাস

শস্যহীন মাঠে।

মনে পড়ে কতদিন

ভাঙা পাড়িতলে পদ্মা

কর্মহীন প্রৌঢ় প্রভাতের

ছায়াতে আলোতে

আমার উদাস চিন্তা দেয় ভাসাইয়া

ফেনায় ফেনায়।

স্পর্শ করি শূন্যের কিনারা

জেলেডিঙি চলে পাল তুলে,

যূথভ্রষ্ট শুভ্র মেঘ পড়ে থাকে আকাশের কোণে।

আলোতে ঝিকিয়া-ওঠা ঘট কাঁখে পল্লীমেয়েদের

ঘোমটায় গুন্ঠিত আলাপে

গুঞ্জরিত বাঁকা পথে আম্রবনচ্ছায়ে

কোকিল কোথায় ডাকে ক্ষণে ক্ষণে নিভৃত শাখায়,

ছায়ায় কুন্ঠিত পল্লীজীবনযাত্রার

রহস্যের আবরণ কাঁপাইয়া তোলে মোর মনে।

পুকুরের ধারে ধারে সর্ষেখেতে পূর্ণ হয়ে যায়

ধরণীর প্রতিদান রৌদ্রের দানের,

সূর্যের মন্দিরতলে পুষ্পের নৈবেদ্য থাকে পাতা।

আমি শান্ত দৃষ্টি মেলি নিভৃত প্রহরে

পাঠায়েছি নিঃশব্দ বন্দনা,

সেই সবিতারে যাঁর জ্যোতীরূপে প্রথম মানুষ

মর্তের প্রাঙ্গণতলে দেবতার দেখেছে স্বরূপ।

মনে মনে ভাবিয়াছি, প্রাচীন যুগের

বৈদিক মন্ত্রের বাণী কন্ঠে যদি থাকিত আমার

মিলিত আমার স্তব স্বচ্ছ এই আলোকে আলোকে;

ভাষা নাই, ভাষা নাই;

চেয়ে দূর দিগন্তের পানে

মৌন মোর মেলিয়াছি পাণ্ডুনীল মধ্যাহ্ন-আকাশে।

  উদয়ন, ১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪১ – দুপুর, পূর্বপাঠ: ৭ পৌষ, ২২ ডিসেম্বর, ১৯৪০

***

The quiet room of the convalescent.

Through the open door

Shadows bend to fall across the bed.

Winter’s welcome sun kisses the hours to sleep

Slowing down the day

 Like a stream slowed down by algae

 Some times a sigh breaks the reverie

Memories of a distant past upon today’s barren field.

I remember once 

How the river would roil beneath broken deck

As idle morning unfolded

 In shadow and glorious light

I let my thoughts ramble

With ebb and flow of foam

Touching the edge of nothingness

 A fishing craft follows its sail,

While an errant cloud is left to wander the skies on its own.

The village women with flashing water pots on hip

In their veiled conversation

 By the shade of mango trees on winding paths

Where does the cuckoo call, unseen upon a dense branch,

The life of the village, shy under tree shade

The mystery deepens in my mind.

 The mustard fields by the lake ripen with seed

The earth’s repayment for sunshine’s gift,

A golden offering at the sun’s feet.

I cast my calm glance upon the silent hour

Sending a wordless prayer

To the sun in whose rays the first humans beheld

The image of god upon the dust of this earth.

I have thought to myself, if only

I had the words of the ancient Vedic hymns on my lips

I would have sent them to join that purest of light;

 But words I lack, I have none to speak;

As I gaze at the distant horizon

My silence I hold in offering to the pale blue of the midday firmament.

Udayan, afternoon February 1st 1941
Previously: 7th Poush, 22nd December 1940

 

Advertisements

এ দ্যুলোক মধুময়/ E dyulok modhumoy/ This earth is filled with sweetness

এ দ্যুলোক মধুময়, মধুময় পৃথিবীর ধূলি–

অন্তরে নিয়েছি আমি তুলি

এই মহামন্ত্রখানি,

চরিতার্থ জীবনের বাণী।

দিনে দিনে পেয়েছিনু সত্যের যা-কিছু উপহার

মধুরসে ক্ষয় নাই তার।

তাই এই মন্ত্রবাণী মৃত্যুর শেষের প্রান্তে বাজে–

সব ক্ষতি মিথ্যা করি অনন্তের আনন্দ বিরাজে।

শেষ স্পর্শ নিয়ে যাব যবে ধরণীর

ব’লে যাব তোমার ধূলির

তিলক পরেছি ভালে,

দেখেছি নিত্যের জ্যোতি দুর্যোগের মায়ার আড়ালে।

সত্যের আনন্দরূপ এ ধূলিতে নিয়েছে মুরতি,

এই জেনে এ ধুলায় রাখিনু প্রণতি।

 উদয়ন, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪১ – সকাল

***

 This earth is filled with sweetness, sweet its very dust –

 And I have taken to heart

This great tenet,

To fulfil the song of life.

 What I have received each day as a gift of truth

Will not be diminished at all.

And that is why it rings out on the eve of death –

Erasing all loss, shining as a beacon infinite.

  When I let go for the final time

I will declare to the earth

 Your dust I have worn with pride upon my brow,

 I have seen your light burn bright behind the illusion of loss

 Truth finds its most joyous expression in this dust,

 In this I believe as I bow in respect.

  Udayan, 14th February, 1941 – morning.