Archive | February 2012

লুকোচুরি/Hide and Seek

লুকোচুরি

আমি যদি দুষ্টুমি করে

চাঁপার গাছে চাঁপা হয়ে ফুটি,

ভোরের বেলা মা গো, ডালের ‘পরে

কচি পাতায় করি লুটোপুটি,

তবে তুমি আমার কাছে হারো,

তখন কি মা চিনতে আমায় পারো।

তুমি ডাক, ‘খোকা কোথায় ওরে। ‘

আমি শুধু হাসি চুপটি করে।

If ever a naughty game I wish to play,

I would hide as a flower in the champak tree

Early each morning, dear Mother, I would sway

On the branches, among every young green leaf.

Then you would surely have to yield defeat,

Would you still know me for your own?

     You would call, “Little one, where are you?”

       I would sit, smiling, quiet as quiet can be.

যখন তুমি থাকবে যে কাজ নিয়ে

সবই আমি দেখব নয়ন মেলে।

স্নানটি করে চাঁপার তলা দিয়ে

আসবে তুমি পিঠেতে চুল ফেলে;

এখান দিয়ে পুজোর ঘরে যাবে,

দূরের থেকে ফুলের গন্ধ পাবে—

তখন তুমি বুঝতে পারবে না সে

তোমার খোকার গায়ের গন্ধ আসে।

As you go about your daily chores,

I would sit watching with eyes open wide.

When you walk under the tree down the path,

I look and see your hair still damp from your bath.

You will go into your little shrine to pray,

The champak flowers fill the air with scent.

You will never know that was how,

Your little one, his love to you, has sent.

দুপুর বেলা মহাভারত-হাতে

বসবে তুমি সবার খাওয়া হলে,

গাছের ছায়া ঘরের জানালাতে

পড়বে এসে তোমার পিঠে কোলে,

আমি আমার ছোট্ট ছায়াখানি

দোলাব তোর বইয়ের ‘পরে আনি—

তখন তুমি বুঝতে পারবে না সে

তোমার চোখে খোকার ছায়া ভাসে।

In the afternoons, with the Mahabharata you sit

Once you have given lunch to every one,

The tree by the window sends shadow imps

To tumble in your lap, and across your back.

I cast the restless little shadow that marks

The pages of the book you wish to read –

You would never know dear Mother,

That is only me gazing back at you.

সন্ধেবেলায় প্রদীপখানি জ্বেলে

যখন তুমি যাবে গোয়ালঘরে

তখন আমি ফুলের খেলা খেলে

টুপ্‌ করে মা , পড়ব ভুঁয়ে ঝরে।

আবার আমি তোমার খোকা হব,

‘গল্প বলো’ তোমায় গিয়ে কব।

তুমি বলবে, ‘দুষ্টু, ছিলি কোথা। ‘

আমি বলব, ‘ বলব না সে কথা। ‘

As evening falls and the cows come home

You will be lighting the sacred lamp

As you walk past, I am done with playing

From the tree, I suddenly drop as a flower spent

Again, I will become your little one

The one who says, “Tell me a story.”

“Naughty boy, where were you all day?” you say,

I reply, “ Will not tell you, nay, nay, nay!”


Advertisements

আমার জীবনপাত্র উচ্ছলিয়া মাধুরী করেছ দান/ You have given me infinite sweetness that overflows the cup of my mortal life

আমার   জীবনপাত্র উচ্ছলিয়া মাধুরী করেছ দান–
তুমি   জান নাই, তুমি জান নাই,
তুমি   জান নাই তার মূল্যের পরিমাণ ॥
রজনীগন্ধা অগোচরে
যেমন রজনী স্বপনে ভরে     সৌরভে,
তুমি   জান নাই, তুমি জান নাই
তুমি  জান নাই, মরমে আমার ঢেলেছ তোমার গান ॥
বিদায় নেবার সময় এবার হল–
প্রসন্ন মুখ তোলো, মুখ তোলো, মুখ তোলো–
মধুর মরণে পূর্ণ করিয়া সঁপিয়া যাব প্রাণ     চরণে ।
যারে   জান নাই, যারে জান নাই,   যারে   জান নাই
তার    গোপন ব্যথার নীরব রাত্রি হোক আজি অবসান ॥

You have given me infinite sweetness that overflows the cup of my mortal life

                Unstintingly you have given but you have not known the value that brought to my life.

No, you have not known that.

Just as the beautiful nightqueen flower scents the night,

Unknowingly, while it dreams in slumber

You have not known how you touched my soul with endless song

No, you have not known that.

Now that it is time to bid farewell –

Lift your gracious face; please look upon me with favour

In sweet death I find complete fulfillment and surrender.

The one who you know not, you have not known at all,

Let her silent night of secret sorrow come to an end.

Follow the links :

Monjur Hamid: http://www.youtube.com/watch?v=7QW-6CZb5G0

দিবস রজনী আমি যেন কার/Day and night, my longing grows

দিবস রজনী আমি যেন কার   আশায় আশায় থাকি ।
তাই     চমকিত মন, চকিত শ্রবণ,   তৃষিত আকুল আঁখি ॥
চঞ্চল হয়ে ঘুরিয়ে বেড়াই,   সদা মনে হয় যদি দেখা পাই–
‘কে আসিছে’ বলে চমকিয়ে চাই     কাননে ডাকিলে পাখি ॥
জাগরণে তারে না দেখিতে পাই,   থাকি স্বপনের আশে–
ঘুমের আড়ালে যদি ধরা দেয়   বাঁধিব স্বপনপাশে ।
এত ভালোবাসি, এত যারে চাই,   মনে হয় না তো সে যে কাছে নাই–
যেন এ বাসনা ব্যাকুল আবেগে তাহারে আনিবে ডাকি ॥

Day and night, my longing grows; I do not quite know what I seek

My senses bewildered; my eyes thirst for just one glimpse of him

Restless, I wander, forever hoping to see that elusive face

Each bird call makes me start and wish for a call to his sweet embrace

If days should pass without his touch, perhaps night will fulfill my dream.

If he should come disguised in sleep, surely with illusion I shall bind him

This love I feel, this yearning intense, his absence I do not heed –

Surely he will come to me once he feels my eager need.

Follow the links:

Aditi Mohsin: http://www.youtube.com/watch?v=buFz5W_xr-8

Manomoy Bhattacharya: http://www.youtube.com/watch?v=VgCcwqo2VRA

দুই হাতে– কালের মন্দিরা যে সদাই বাজে ডাইনে বাঁয়ে দুই হাতে/ The cymbals of time

 দুই হাতে–
কালের   মন্দিরা যে সদাই বাজে   ডাইনে বাঁয়ে দুই হাতে,
সুপ্তি ছুটে নৃত্য উঠে   নিত্য নূতন সংঘাতে॥
বাজে ফুলে, বাজে কাঁটায়,   আলোছায়ার জোয়ার-ভাঁটায়,
প্রাণের মাঝে ওই-যে বাজে   দু:খে সুখে শঙ্কাতে॥
তালে তালে সাঁঝ-সকালে   রূপ-সাগরে ঢেউ লাগে।
সাদা-কালোর দ্বন্দ্বে যে ওই  ছন্দে নানান রঙ জাগে।
এই তালে তোর গান বেঁধে নে– কান্নাহাসির তান সেধে নে,
ডাক দিল শোন্‌ মরণ বাঁচন নাচন-সভার ডঙ্কাতে॥

The cymbals of time 

The cymbals of time play on eternal, as the left hand meets the right!

                         Who dares to sleep; now yield to dance, with each resounding strike!

It awakens life in flower and thorn, as it does in the ebb of light and shade

In my very soul, I hear its call, as sorrow, fear and pure joy pervade

To that same beat does day follow night, this sea of life rise in restless flight

As black meets white, the rhythm gives birth to colours that delight.

With this same rhythm your song must bloom, in tears and in laughter,

               For there comes the call, as life and death play on the drums for Life’s final curtain fall.

Follow the links to listen to

Purabi Mukherjee: http://www.youtube.com/watch?v=HxGsZ_PwQ70

Sounak Chatterjee:http://www.youtube.com/watch?v=mh0-zBokA5s

আমি রূপে তোমায় ভোলাব না /I will not beguile you with mere beauty

আমি     রূপে তোমায় ভোলাব না , ভালোবাসায় ভোলাব ।
আমি     হাত দিয়ে দ্বার খুলব না গো , গান দিয়ে দ্বার খোলাব ॥
ভরাব না ভূষণভারে ,     সাজাব না ফুলের হারে –
সোহাগ আমার মালা করে গলায় তোমার দোলাব ।
জানবে না কেউ কোন্‌ তুফানে   তরঙ্গদল নাচবে প্রাণে ,
চাঁদের মতন অলখ টানে জোয়ারে ঢেউ তোলাব ॥

 

I will not beguile you with mere beauty; I would rather conquer you with selfless love

I will not push open the doors to your heart; rather I will serenade you with melody

I will not adorn myself with ornaments bright, not garland myself with flowers perfumed

My love for you shall be the only offering I bring.

No one will know what storms will stir such emotions in your heart

Like the moon in the sky, I will sway from afar the thoughts that swirl through your mind.

Follow the links to listen to the song:

Vikram Singh Khangura: http://www.youtube.com/watch?v=PMQhlVWiyo4

Kanika Banerjee: http://www.youtube.com/watch?v=9vhNL3rfWIk

হঠাৎ দেখা/The accidental meeting

হঠাৎ দেখা

রেলগাড়ির কামরায় হঠাৎ দেখা ,

ভাবি নি সম্ভব হবে কোনোদিন ।

আগে ওকে বারবার দেখেছি

লালরঙের শাড়িতে

দালিম ফুলের মতো রাঙা ;

আজ পরেছে কালো রেশমের কাপড় ,

আঁচল তুলেছে মাথায়

দোলনচাঁপার মতো চিকনগৌর মুখখানি ঘিরে ।

মনে হল , কালো রঙে একটা গভীর দূরত্ব

ঘনিয়ে নিয়েছে নিজের চার দিকে ,

যে দূরত্ব সর্ষেখেতের শেষ সীমানায়

শালবনের নীলাঞ্জনে ।

থমকে গেল আমার সমস্ত মনটা ;

চেনা লোককে দেখলেম অচেনার গাম্ভীর্যে ।

হঠাৎ খবরের কাগজ ফেলে দিয়ে

আমাকে করলে নমস্কার ।

সমাজবিধির পথ গেল খুলে ,

আলাপ করলেম শুরু —

কেমন আছ , কেমন চলছে সংসার

ইত্যাদি ।

সে রইল জানলার বাইরের দিকে চেয়ে

যেন কাছের দিনের ছোঁয়াচ – পার – হওয়া চাহনিতে ।

দিলে অত্যন্ত ছোটো দুটো – একটা জবাব ,

কোনোটা বা দিলেই না ।

বুঝিয়ে দিলে হাতের অস্থিরতায় —

কেন এ – সব কথা ,

এর চেয়ে অনেক ভালো চুপ করে থাকা ।

আমি ছিলেম অন্য বেঞ্চিতে

ওর সাথিদের সঙ্গে ।

এক সময়ে আঙুল নেড়ে জানালে কাছে আসতে ।

মনে হল কম সাহস নয় ;

বসলুম ওর এক – বেঞ্চিতে ।

গাড়ির আওয়াজের আড়ালে

বললে মৃদুস্বরে ,

“ কিছু মনে কোরো না ,

সময় কোথা সময় নষ্ট করবার ।

আমাকে নামতে হবে পরের স্টেশনেই ;

দূরে যাবে তুমি ,

দেখা হবে না আর কোনোদিনই ।

তাই যে প্রশ্নটার জবাব এতকাল থেমে আছে ,

শুনব তোমার মুখে ।

সত্য করে বলবে তো ?

আমি বললেম , “ বলব । ”

বাইরের আকাশের দিকে তাকিয়েই শুধোল ,

“আমাদের গেছে যে দিন

একেবারেই কি গেছে ,

কিছুই কি নেই বাকি । ”

একটুকু রইলেম চুপ করে ;

তারপর বললেম ,

“রাতের সব তারাই আছে

দিনের আলোর গভীরে । ”

খটকা লাগল , কী জানি বানিয়ে বললেম না কি ।

ও বললে , “ থাক্‌ , এখন যাও ও দিকে । ”

সবাই নেমে গেল পরের স্টেশনে ;

আমি চললেম একা ।

The Accidental Meeting

I suddenly saw her on the train,

I had never felt it possible again.

I had seen her many times before

In a red sari

As bright as a pomegranate blossom

Today she was in black silk

The sari wrapped around her head

Around the glowing fair face so like a champaka flower.

I felt the black created a distance between the two of us;

The same distance that colours the sal forests

That smudge the horizon beyond the mustard fields.

My heart stood still for a moment

I saw the familiar in the guise of the unknown.

She put the newspaper aside all at once

To greet me

Social mores satisfied,

We started to talk

How are you, how is your family etc?

She kept looking out the window

As if she was looking beyond the recent past

She spoke little – a word or two,

Sometimes none at all.

Her restless hands spoke to me –

Why all these words they said,

It would have been far better to have remained quiet.

I was sitting on another seat,

With her companions

At one point she beckoned me to come close,

I felt this was very bold

I went and sat next to her.

Behind the sound of the train

Came her voice very low,

“Please do not mind,

There is hardly any time to waste

I have to get off at the next station;

You will go further,

We will never meet again;

That is why the answer that has stayed unsaid

I wish to hear,

Will you tell me the truth?

I said, “I will”,

She kept looking at the sky as she said

“The days that we had together,

Are they completely finished?

Is there nothing left in them?”

I was silent for a little while;

Then I said,

“All the stars of the night lie in wait,

Lending their aura to the bright light of day.”

I felt strange, wondering,was I making this up

She said, “Alright, now go back over there”,

They all got off at the next stop;

I went on, all alone.

একটি দিন/One Day

                                                           একটি দিন

মনে পড়ছে সেই দুপুরবেলাটি। ক্ষণে ক্ষণে বৃষ্টিধারা ক্লান্ত হয়ে আসে, আবার দমকা হাওয়া তাকে মাতিয়ে তোলে।

ঘরে অন্ধকার, কাজে মন যায় না। যন্ত্রটা হাতে নিয়ে বর্ষার গানে মল্লারের সুর লাগালেম।

পাশের ঘর থেকে একবার সে কেবল দুয়ার পর্যন্ত এল। আবার ফিরে গেল। আবার একবার বাইরে এসে দাঁড়াল। তার পরে ধীরে ধীরে ভিতরে এসে বসল। হাতে তার সেলাইয়ের কাজ ছিল, মাথা নিচু করে সেলাই করতে লাগল। তার পরে সেলাই বন্ধ করে জানলার বাইরে ঝাপসা গাছগুলোর দিকে চেয়ে রইল।

বৃষ্টি ধরে এল, আমার গান থামল। সে উঠে চুল বাঁধতে গেল।

এইটুকু ছাড়া আর কিছুই না। বৃষ্টিতে গানেতে অকাজে আঁধারে জড়ানো কেবল সেই একটি দুপুরবেলা।

ইতিহাসে রাজাবাদশার কথা, যুদ্ধবিগ্রহের কাহিনী, সস্তা হয়ে ছড়াছড়ি যায়। কিন্তু একটি দুপুরবেলার ছোটো একটু কথার টুকরো দুর্লভ রত্নের মতো কালের কৌটোর মধ্যে লুকোনো রইল, দুটি লোক তার খবর জানে।

I remember that afternoon. The rain lessened every now and again, until gusts of wind encouraged it back into torrents.

The room grew dark, I could not pay attention to my work.I picked up my instrument and started playing a song about the rain, set to the Mallar raga.

She came from the next room and stood at the door. Then she went back. She returned and stood outside the door; finally, she walked in slowly and sat down. She had some needlework with her which she now concentrated on. Presently, she put down the needlework and gazed at the faint outlines of trees outside the window.

The rain stopped. My music came to an end. She went away to comb her hair.

This is all. Just one afternoon filled with rain, song, idleness and shadows.

In the pages of history, the stories of kings and the wars they fight happen so often, they become commonplace. But our memories of that one afternoon are locked away like a precious gem in the coffers of time, only two people know about that.